Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
09 24 18

সোমবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই মুহাররম, ১৪৪০ হিজরী

Home - দিনাজপুর - ফুলবাড়ীতে শিক্ষকের নির্যাতনে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে কওমী মাদরাসার শিশু শিক্ষার্থী

ফুলবাড়ীতে শিক্ষকের নির্যাতনে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে কওমী মাদরাসার শিশু শিক্ষার্থী

ফুলবাড়ীতে শিক্ষকের নির্যাতনে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে কওমী মাদরাসার শিশু শিক্ষার্থীষ্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শিক্ষকের নির্যাতনের হুরুতর আহত কয়ে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে এক কওমী মাদরাসার পিতা-মাতা হারা শিশু শিক্ষার্থী শাকিল (১১)।

App DinajpurNews Gif

নির্যাতনের আঘাতের চিহ্নি দেখে চোখের অশ্রু ধরে রাখতে পারেনি, হাসপাতলে উপস্তিত দর্শনার্থীরাও। চিকিৎক বলছেন শাকিলের সারা শরিরে আঘাতের কারনে রক্ষ ক্ষরন হচ্ছে যে কোন সময় অবস্থার অবনতি ঘটতে পারে।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শুক্রবার সন্ধা ছয় টায় উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের দেবীপুর হাফিজিয়া মাদরাসায়।

নির্যাতনের শিকার শিশু শিক্ষার্থী শাকিল একই এলাকার মহিবুলের ছেলে, শাকিরের মা সজিনা খাতুন মৃত্যু বরন করায়, শাকিলের বাবা অনাত্র চলে গেলে, শোকিল একই গ্রামের নানা সাব্দুরের বাড়ীতে থাকে।

নির্যাতনের শিকার শিশু শিক্ষার্থী ও স্থানীয় বাসীন্দারা জানায়, দেবীপুর হাফিজিয়া মাদরাসার সহকারী শিক্ষক হাবিব উদ্দিনের ১৫০ টাকা হারিয় যায়। এই টাকা পিতা-মাতা হারা এই শিক্ষার্থী শাকিল নিতে পারে এই সন্দেহে, সহকারী শিক্ষক হাবিব শুক্রবার সন্ধা ৬ টায় শাকিলকে মাদরাসার ঘরের ভিতর নিয়ে বাশের লাটি দিয়ে নির্মম ভাবে নির্যাতন করে।

এই ঘটনা জানতে পেরে শাকিলের নানা একই গ্রামের বাসীন্দা দিন মজুর সাব্দুল মিয়া কোন রকমভাবে ওই নির্যাতনকারী শিক্ষকের হাত থেকে শাকিলকে ছেড়ে নিয়ে এক গ্রাম্য চিকিৎকের নিকট চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে, সেখানে গ্রাম্য চিকিৎসক শাকিলের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায়, তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তিকরার পরামর্শ দেন। শাকিলকে ওই দিন সন্ধা ৬টা ৫৫ মিনিটে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

ফুলবাড়ীতে শিক্ষকের নির্যাতনে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে কওমী মাদরাসার শিশু শিক্ষার্থীউপজেলা স্বাস্থ্র কমপ্লেক্সে আবাসীক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সঞ্জয় কুমার বলেন, শাকিলের শরিরে এখাধিন জখমের চিহ্নি পাওয়া গেছে, শরিরে অনেক জায়গা আঘাতের কারনে ছিলে গেছে, শরিরের মাংশ পেশি ফেটে গেছে, সারা শরিরে রক্তক্ষরন হচ্ছে, যে কোন সময় অবস্থা অবনতির দিকে যেতে পারে।

এই বিষয়ে ওই নির্যাতন কারী শিক্ষক হাবিব উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে কথা বল্লে , হাবিব উদ্দিন বলেন, টাকা চুরি করার অপরাধে একটু শাসন করা হয়েছে বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

একই বিষয়ে দেবীপুর হাফিজিয়া মাদরাসার প্রধান শিক্ষক বায়োজিদ বোস্তামীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ঘটনার সময় তিনি উপস্থিত ছিলেননা, ঘটনাটি দুঃখজনক বলে তিনি জানান।

এই বিষয়ে শিবনগর ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রহমান চৌধুরী বিপ্লব এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি যায়যায়দিনকে ঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেন ঘটনাটি অন্যায়, এই বিষয়ে তিনি ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন বলে তিনি জানান।
নির্যাতনের ঘটনাটি অবহিত করলে উপজেলা নির্বাহি অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরী বলেন ঘটনাটি তিনি জেনেছেন, এবং ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পুলিশকে নির্দ্দেশ নিয়েছেন।

এদিকে আজ শনিবার পর্যন্ত নির্যাতনকারী শিক্ষককে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এই বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার অফির্সস ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ঘটনার পর থেকে ওই শিক্ষক পলাতক রয়েছে, পুলিশ তাকে আটক করার চেষ্ঠা করছে।

শাকিলের নানা সাব্দুল মিয়া বলেন শাকিলের মা সজিনা বেগ গত কয়েক বছর পুর্বে মারা গিয়েছে, শাকিলের মা’র মৃত্যুর পর শাকিলের পিতা মহিবুল ইসলাম অনাত্র বিয়ে করে সেখানে ঘর সংসার করছে, আর শাকিলকে তিনি মানুষ করছেন, তাকে আরবী শিক্ষা দেয়ার জন্য গ্রামের ( দেবীপুর) হাফিজিয়া মাদরাসায় দিয়েছেন।