কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ২ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত দুইজন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে কাশ্মিরের বান্দিপোরা জেলায় এই সংঘর্ষ ঘটে। এখনও সেখানে গোলাগুলি চলছে। সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

কাশ্মিরে সশস্ত্র বিদ্রোহী সংগঠনগুলোর কেউ কেউ সরাসরি স্বাধীনতার দাবিতে আন্দোলনরত। কেউ কেউ আবার কাশ্মিরকে পাকিস্তানের অঙ্গীভূত করার পক্ষে। ইতিহাস পরিক্রমায় ক্রমেই সেখানকার স্বাধীনতা আন্দোলনের ইসলামিকরণ হয়েছে।

এখন সেখানকার বিদ্রোহী সংগঠনগুলোর মধ্যে হিজবুল মুজাহিদিন সবচেয়ে সক্রিয়। তবে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ কাশ্মিরের জাতিমুক্তি আন্দোলনকে বিভিন্ন জঙ্গিবাদী তৎপরতার থেকে আলাদা করে শনাক্ত করে না। সন্দেহভাজন জঙ্গি নাম দিয়ে বহু বিদ্রোহীর পাশাপাশি বেসামরিকদের হত্যার অভিযোগ রয়েছে ভারতীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে।

পুলিশ দাবি করে, বৃহস্পতিবারে সকালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি টহল বাহিনীর ওপরে হাজিন পারা মহল্লা থেকে গুলি চালানো হয়। জবাবে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাও গুলি চালায়। তখনই বন্দুকযুদ্ধ শুরু হয়। একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, এখনও বন্দুকযুদ্ধ চলছে। যোগ দিয়েছে পুলিশের অতিরিক্ত সদস্য।

এর আগে ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরের অনন্তনাগ জেলায় বুধবার সকালে যৌথবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষেদুইজন নিহত হয়েছিলো। গেরিলাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় বাহিনীর অভিযানে বাধা হয়ে দাঁড়ায় স্থানীয়রা। তরুণরা পাথর ছুঁড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ তরুণদের উদ্দেশে কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপসহ পেলেটগান ব্যবহার করে ভারতীয় বাহিনীর সদস্যরা। আবিদ রশিদ ভাট নামে এক প্রতিবাদী তরুণ পেলেটগানের ছররা গুলিতে আহত হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য