ফুলবাড়ী দিবসঃ ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়ন ও নেতৃবৃন্দের নামে মামলা প্রত্যাহারে আল্টিমেটামষ্টাফ রির্পোটারঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীবাসীর সাথে সম্পাদিত ছয় দফা চুক্তির বাস্তবায়ন ও ফুলবাড়ী খনি আন্দোলনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের নামে এশিয়া এনার্জির দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহের দাবী জানিয়ে পৃথক কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে ফুলবাড়ীর গণআন্দোলনের একযুগ প্রতি ফুলবাড়ী দিবস।

আজ রবিবার তেলগ্যাস খনিজ সম্পাদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখা ও অরাজনৈতিক সম্মিলিত পেশা জিবী সংগঠন পৃথক পৃথক কর্মসুচিতে অভিন্ন দাবীতে দিবসটি পালন করেন।

আগামী এক মাসের মধ্যে ২০০৬ সালে ফুলবাড়ী বাসীর সাথে সম্পাদি ছয় দফা চুক্তি বাস্তবায়ন ও আন্দোলনকারী নেতৃবৃন্দের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যারের আল্টিমেটাম ঘোষনা করেন তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখার আহবায়ক সৈয়দ সাইফুল ইসলাম। এক মাসের মধ্যে দাবী পুরন না হলে আগামী ১০ আক্টোবর মহা সমাবেশ করে কঠোর কর্মসুচি দেয়ার হুকদিও দেন তিনি।

এদিকে তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেছেন, বড়পুকুরিয়া কয়লা রুন্ঠনের ঘটনা নতুন নয়, সারাদেশে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় যে লটপাট চলছে, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কয়লা লুন্ঠন তারেই একটি অংশ। তিনি বলেন সুধু কয়লা লুন্ঠন হয়নি,ব্যাংক থেকে টাকা লুন্ঠন, দেশের বিভিন্ন সার্থ চুক্তির মাধ্যমে বিদেশিদের হাতে তুলে দিয়ে কমিশন বানিজ্য চলছে সরকারের পৃষ্ঠ পোষকতায়।

একই ভাবে রামপাল বিদুৎ কেন্দ্র নির্মানের মধ্য দিয়ে আজ সুন্দরবনকে ধ্বংশ করে দেয়া হচ্ছে। তাই বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদ আজ হুমকির মুখে। ফুলবাড়ী দিবসঃ ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়ন ও নেতৃবৃন্দের নামে মামলা প্রত্যাহারে আল্টিমেটামএই জাতীয় সম্পদ রক্ষা করতে হলে ২০০৬ সালের ২৬ আগষ্ঠ যে ভাবে ফুলবাড়ীতে গণআন্দোল গড়ে উঠেছিল, এখন সারাদেশে সেই গণআন্দোলন গড়ে উঠার প্রয়োজন হয়ে দেখা দিয়েছে।

তিনি আজ রবিবার দুপুর ১২ টায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে, ফুলবাড়ী গণআন্দোলনের একযুগ প্রতি উপলক্ষে তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখার উদ্যোগে এক প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য উপরোক্ত কথা বলেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখার আহবায়ক সৈযদ সাইফুল ইসলাম জুয়েল এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রিয় কমিটির সম্বনয়ক জোনায়েদ সাকি, ইউনাইটেড কমিনিউস্ট লীগ এর সম্পাদক মোশারফ হোসেন নান্নু,বাংলাদেশের কমিনিউস্ট পাটির এর কেন্দ্রিয় কমিটির নেতা শাহীন রহমান, বিপ্লবী ওয়ার্কাস পাটির কেন্দ্রিয় নেতা আনছার আলী দুলাল, কেন্দ্রিয় নেতা এসএম খালেক, আদিবাসী নেতা রবীন সরেন, জাসদ এর কেন্দ্রিয় নেতা রফিকুল ইসলাম, জাতীয় ক্ষেমজুর সমিতি ও গণফ্রন্ট এর কেন্দ্রিয় নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাবলু।

এতে অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতয়ি কমিটির দিনাজপুর জেলা শাখার আহবায়ক মোশারফ হোসেন, সদস্য সচিব মনিরুজ্জামান, রাজশাহী বিশ^ বিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি চন্দন সরকার, সিপিবি দিনাজপুর জেলা সভাপতি এ্যাডভোকেট মেহেরুল ইসলাম,ফুলবাড়ী শাখার সাধারন সম্পাদক এসএম নুরুজ্জামান জামান প্রমুখ।

এর পুর্বে সকাল ১০ টায় তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ফুলবাড়ী শাখার উদ্যোগে, স্থানীয় নিমতলা মোড় থেকে একটি শোক র‌্যালী বের হয়, র‌্যালীটি পৌর শহর প্রদক্ষিন করে ২০০৬ সালের ২৬ আগষ্টের শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্পন করে।

অপরদিকে ফুলবাড়ী সম্মিলিত পেশা জিবী সংগঠনের উদ্যোগে সকাল ৯ টায় ব্যবসায়ী সমিতির কার্য্যলয় থেকে একটি শোক র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি পৌর শহর প্রদক্ষিন করে ২০০৬ সালের ২৬ আগষ্টের শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্পন করে । র‌্যালী শেষে স্মৃতিস্তম্ভ প্রাঙ্গনে শপৎ পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সম্মিলিত পেশা জিবী সংগঠনের সদস্য সচিব সহকারী অধ্যপক শেখ সাবির আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে ব্ক্তব্য রাখেন সম্মিলিত পেশা জিবী সংগঠনের আহবায়ক পৌর মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক। এতে অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বর্ণ শিল্পি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মানিক মন্ডল, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমিতির নেতা মমিনুল ইসলাম প্রমুখ। এছাড়া দোকান কর্মচারী ইউনিয়ন কুলি শ্রমিক ইউনিয়ন, রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন রাজনৈতি, পেশাজিবী ও সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে শোক র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য ২০০৬ সালের ২৬ আগষ্ঠ উম্মুক্ত পদ্ধতিতে ফুলবাড়ী কয়লা খনি বাস্তবায়নের বিরুদ্ধে, খনিটির বাস্তাবায়নের প্রাথমিক কাজে নিয়োজিত এশিয়া এনার্জি নামে একটি বহুজাতীক কোম্পানীর ফুলবাড়ী অফিস ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে গিয়ে আইনশৃংখলা বাহীনীর গুলিতে প্রান হারায় আমিন সালেকিন ও তরিকুল নামে তিন যুবক। একই ঘটনায় আহত হয় কয়েক’শ মিছিলকারী, এর পর ফুলবাড়ী বাসীর গণআন্দোলনের মুখে ৩০ আগষ্ঠ তৎকালিন সরকার ফুলবাড়ীবাসীর সাথে ছয় দফা শর্তে একটি সমজোতা চুক্তি স্বাক্ষর করে। এরপর থেকে ২৬ আগষ্ঠ ফুলবাড়ী দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য