অপরাধ দমনে ইন্দোনেশিয়ায় পুলিশের অভিযানে ‘বহু নিহত’এশিয়ান গেমসকে কেন্দ্র করে ‘ছিঁচকে’ অপরাধীদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযানে নেমেছে ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ।

চলমান এশিয়ান গেমসকে সামনে রেখে শুরু হওয়া এ অভিযানে এ ধরনের বহু অপরাধীকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোষ্ঠী অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের, খবর বিবিসির।

এসব হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে অ্যামনেস্টি ইন্দোনেশীয় পুলিশের ‘প্রথমে গুলি পরে জিজ্ঞাসাবাদ নীতি’ তদন্ত করে দেখার আহ্বান জানিয়েছে।

শনিবার দুই সপ্তাহব্যাপী এশিয়ান গেমস শুরু হয়েছে। রাজধানী জাকার্তা ও দক্ষিণ সুমাত্রার শহর পালেমবাংয়ে গেমসের ইভেন্টগুলো অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

১৮তম বার্ষিক এই গেমস উপলক্ষে কর্তৃপক্ষ এক লাখ পুলিশ ও সৈন্য মোতায়েন করেছে। ১৮ অগাস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই গেমসে এশিয়ার ১৭ হাজার ক্রীড়াবিদ অংশ নিচ্ছে। অলিম্পিকের বাইরে এটিই বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া আয়োজন।

অ্যামনেস্টি ইন্দোনেশিয়ার প্রধান উসমান হামিদ বলেন, “সবার জন্য নিরাপত্তার উন্নতি ঘটানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। যদিও আমরা দেখতে পাচ্ছি পুলিশ বহু মানুষকে গুলি করে মেরে ফেলছে এবং এসব মৃত্যুর জন্য তেমন কোনো জবাবদিহিতা করতে হচ্ছে না।

“মানবাধিকার বর্জনের মূল্যে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আয়োজনের স্বাগতিক হওয়া উচিত নয়।”

জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত গুলিতে অন্তত ৭৭ জন নিহত হয়েছেন বলে প্রকাশিত খবরের বরাতে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি। এদের মধ্যে ৩১ জনের মৃত্যু পুলিশের অভিযান চলাকালে হয়েছে।

এশিয়ান গেমসের স্বাগতিক শহরগুলোকে ‘পরিষ্কার’ করাই এর লক্ষ বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাটি।

ইন্দোনেশীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পুলিশকে প্রতিরোধের চেষ্টার সময় ওইসব লোক গুলিবিদ্ধ হয়েছিল।

জুলাইতে ওই অভিযান শুরুর সময় উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা তাদের কর্মকর্তাদের ‘কঠোর পদক্ষেপ নিতে ইতস্তত না করতে’ বলেছেন বলে বিবিসি ইন্দোনেশিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল।

জুলাইয়ের প্রথম অর্ধে হত্যাকাণ্ড সর্বোচ্চ পর্যায়ে উঠেছিল। ওই সময় জাকার্তায় ১১ জনকে গুলি করে হত্যা করা হয় ও আরও ৪২ জনের পায়ে গুলি করা হয়।

এসব ঘটনায় পুলিশের ‘অতিরিক্ত ও অপ্রয়োজনীয় বলপ্রয়োগের’ ঘটেছে অভিযোগ করে এক বিবৃতিতে এসব ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন হামিদ।

এশিয়ান গেমস চলাকালে আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কয়েক হাজার লোককে গ্রেপ্তার ও কয়েকশত লোককে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় পুলিশ প্রধান জেনারেল টিটো কারনাভিয়ান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য