ফুলবাড়ীতে জমে উঠেছে কোরবানী পশুর হাটষ্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শেষ সময়ে জমে উঠেছে করবানীর পশুর হাট।পৌরসভাসহ উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন প্রায় প্রতিদিনেই বসছে পশুর হাট। গরু ব্যবসায়ীরা বলছেন এই কুরবানীর হাটে বিদেশী বড় গরুরর তুলুনায় দেশি ও ছোট গরুর চাহিদা বেশি।

এদিকে পশুর হাট হিসেবে সুধুমাত্র ফুলবাড়ী পৌরসভা, মাদিলা হাট ও আমডুঙ্গির হাট ছাড়া অন্য কোন হাটের সরকারী ইজারা না থাকায় বিপুল পরিমান রাজস্ব্য হারাছে সরকার।

জানা গেছে ফুলবাড়ী পৌরসভা কতৃক উপশহর মাঠে সাড়ে ১১ একর জায়গায় সপ্তাহে দু’দিন করে বসছে কোরবানির পশুর হাট, এছাড়া উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের আমডু্িঙ্গর হাট, কাজিহাল ইউনিয়নের আটপুকুর ও পুখুরী হটি, বেতদিঘী ইউনিয়নে মাদিলা হাট, খয়েরবাড়ী ইউনিয়নের খয়েরবাড়ী হাট ও আলাদিপুর ইউনিয়নের বারাই হাটে সপ্তাহে দু’দিন করে বসছে পশুর হাট।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্য্যলয় সুত্রে জানা গেছে কেবল মাত্র ফুলবাড়ী পৌরসভার হাট, মাদিলা হাট ও শিবনগর ইউনিয়নের আমডুঙ্গির হাট ছাড়া, অন্য কোন হাটের পশুর হাট হিসেবে ইজারা প্রদান করা হয়নি, এতেকরে বিপুল পরিমান রাজস্ব্য হারাচ্ছে সরকার।

এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ইজারা বদে পশুর হাট বসেছে বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ্যা নিবেন বলে জানান।

হাট গুলো ঘুরে দেখা যায় ঈদুল আযহা যত ঘনিয়ে আসছে, হাটে গরু-ছাগলের সরবরাহ ততই বাড়ছে। তবে হাট গুলোতে ভারতীয় গরু না থাকায় দেশি প্রজাতির গরুর চাহিদা রয়েছে তরে আমদানী উপক্ষে ক্রেতা অনেক কম হওয়ায় কম দামে গরু বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে খামারীরা।

গরু ব্যবসায়ীরা বলছেন, এই অঞ্চল কৃষকদের আমন রোপণ করতে হচ্ছে। এই কারণে কৃষকদের হাতে টাকা নাই। আর গ্রামাঞ্চলের কোরবানির হাটে অধিকাংশ ক্রেতা কৃষক। এই কারণে কৃষকেরা অল্প দামে ছোট গরু কোরবানি দেওয়ার জন্য নির্ধারণ করছে। ফলে হাটে ছোট ও কম দামের গরুর চাহিদা অনেক বেশি। অনেক গরু বিক্রেতা বলছেন, গরুর খাদ্যের দাম অনেক বেশি কিন্তু গুরুর দাম কম হওয়া মুল পুজি হারানোর সম্ভবনা দেখা দিয়েছে।

প্রাণী সম্পদ বিভাগ বলছে উপজেলাসহ ১৩টি উপজেলায় মোট ১লাখ ৮৮হাজার ৮৮০টি পশু কোরবানীর জন্য প্রস্তুত রয়েছে। প্রতিটি পশুর হাটে প্রাণিসম্পদ অফিসের পক্ষ থেকে মেডিকেল বুধ স্থাপন করা হয়েছে। পশু কোরবানী পরবর্তী করনীয় ও সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য জনসাধারনকে পরামর্শসহ লিফলেট বিতরন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শাহিনুর আলম ।

এদিকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে পাইকাররা এ এলাকার বড় বড় পশুর হাট থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ ট্রাক গরুক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন হাটে।

এদিকে হাটের নিরাপত্তায় পুলিশ আনছার ও জাল টাকা পরিক্ষায় ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফুলবাড়ী পৌর মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য