কাবুলে গোয়েন্দা দফতরে ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের লক্ষ্য করে বোমা হুমলাআফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে একটি গোয়েন্দা সংস্থার দফতরে কয়েকজন বন্দুকধারী হামলা চালিয়েছে। তবে এখনও হতাহতের ব্যাপারে কিছু নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

একদিন আগেই শহরটির একটি কোচিং সেন্টারের সামনে বোমা হামলায় ৪৮ জন নিহত হয়েছিলেন। আহত হন আরও ৬৭ জন। হতাহতদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ। তারা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির জন্য কোচিং করছিলেন।

তবে বৃহস্পতিবার সকালের হামলায় এখনও হতাহতের সংখ্যা জানা যায়নি। স্থানীয় সময় সকাল সোয়া ১০টার সময় শহরের কালা-ই-ওয়াজির এলাকায় হামলা চালায় বন্দুকধারীরা। কাবুল পুলিশের মুখপাত্র হাশমত স্তানিকজাই বলেন, আমরা এখন ভবনটিতে আটকে পড়াদের উদ্ধারের চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা এলাকাটি ঘিরে ফেলেছে। বন্দুকধারীরা ওই সেন্টারের বিপরীত পাশ থেকে গুলি চালাচ্ছিলো।

স্থানীয়রা জানান, তারা অন্তত একটি বিস্ফোরণের আওয়াজ পেয়েছেন। এখন পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠী হামলার দায়ভার স্বীকার করেনি।

এদিকে আফগানিস্তানে স্কুলে বোমা হামলায় অন্তত ৩৪ জন নিহত হয়েছে। রাজধানী কাবুলের পশ্চিমে শিয়া অধ্যুষিত দাশত-ই-বারচি এলাকার ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বৃহস্পতিবার হামলার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিল ছাত্ররা। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াহিদ মারজুহ আল জাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে।

তবে নিহতদের মধ্যে কতজন শিক্ষার্থী রয়েছে তা নিশ্চি করতে পারেনি দেশটির কর্তৃপক্ষ। পুলিশের একজন মুখপাত্র হাসমত স্টানিকজাই বলেছেন, একজন আত্মঘাতি বোমারু এই হামলা করেছে। শিক্ষা কেন্দ্রের ভিতরে ওই হামলা হয়েছে।

আবুল হোসেইন হোসাইনজাদা নামে স্থানীয় একজন শিয়া নেতা জানিয়েছেন, ছেলে-মেয়ে একসঙ্গে এখানে পড়ালেখা করায় বোমারু এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা করে থাকতে পারে। তবে তালেবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ এই হামলায় সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছেন। এছাড়া তাৎক্ষণিকভাবে অন্য কোনও গোষ্ঠীও এই হামলার দায় স্বীকার করেনি।

জাওয়াদ গাওয়ারি নামে স্থানীয় আরেকজন শিয়া নেতা বলেছেন ইসলামিক স্টেট এই হামলায় জড়িত থাকতে পারে। কারণ এর আগেও মসজিদ, স্কুল ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে হামলা করেছে। কাবুলে শিয়া সম্প্রদায়ের উপর দুই বছরে ১৩টি আক্রমণ হয়েছে বলেও জানান তিনি।

কাবুল ভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল ১টিভির আব্দুল্লাহ খেনজানি ১টিভির প্রধান সম্পাক বলেছেন, আইএসআই এর নাম ব্যবহার করে তালেবানই এই হামলা করেছে। এই ধরনের হামলায় জনগণের পক্ষ থেকে যে চাপ আসে তা সামাল দিতেই তালেবান আইএসকে ব্যবহার করছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য