11 21 18

বুধবার, ২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১২ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী

Home - দিনাজপুর - যথাযোগ্য মর্যাদায় হাবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত -২০১৮

যথাযোগ্য মর্যাদায় হাবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত -২০১৮

যথাযোগ্য মর্যাদায় হাবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত -২০১৮আব্দুল মান্নান,হাবিপ্রবিঃ যথাযোগ্য মর্যাদা ও গুরুগাম্ভীর্য্যের সাথে দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ২০১৮ পালিত হয়েছে।

App DinajpurNews Gif

নানা কর্মসূচির অংশ হিসেবে দিবসটিতে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে একাডেমিক ভবনের সম্মুখে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। এরপর সকাল ৯ টায় কালো ব্যাচ ধারণ করে উপাচার্য প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম এর নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের এক বিশাল শোক র‌্যালি বের হয় । র‍্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার চত্বর থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের সামনের মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনারায় শহীদ মিনারে চত্বরে এসে শেষ হয় ।

র‌্যালি শেষে ভাইস চ্যান্সেলর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শহীদ মিনারে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এরপর ক্রমান্বয়ে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ, কর্মকর্তা – কর্মচারী ও হাবিপ্রবি স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য সংগঠণ । পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে শোক দিবস উপলক্ষে ভাইস চ্যান্সেলরের বাণী পাঠ করে শোনান বঙ্গবন্ধু হলের সহকারী হল সুপার মোঃ সাইফুদ্দিন দুরুদ।

পরে বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়াম-১ এ ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মো. তারিকুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে দিবসটির তাৎপর্যের উপর ভিত্তি করে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার সহকারী পরিচালক ড. মোহাম্মদ রাজিব হাসান এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধক্ষ্য প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র হালদার, ভেটেরিনারি অ্যান্ড এনিমেল সায়েন্স অনুষদের ডীন প্রফেসর ডা. মো. ফজলুল হক, এবং বাংলাদেশ ছাত্রলিগ হাবিপ্রবি শাখার ছাত্রলীগ নেতা মোঃ মোস্তাফা তারেক চৌধুরী ও রাসেল।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এদেশের বীর জনতা নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা পেয়েছি স্বাধীনতা,একটি স্বাধীন ভূখণ্ড এবং লাল সবুজের একটি পতাকা। এটি বাঙালি জাতির হাজার বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অর্জন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গঠনে তাঁর সুযোগ্যা কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তার সে প্রচেষ্টায় ইতোমধ্যে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। আমি বিশ্বাস করি উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত থাকলে আমরা ২০৪১ সালের পূর্বেই উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে পারবো।

আমাদেরকে বঙ্গবন্ধুর জীবনী সম্পর্কে ভাল করে জানতে হবে এবং দেশ গঠণে তিনি যে ভূমিকা পালন করেছেন সেখান থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে । আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের প্রতি আহবান জানাই,আসুন ব্যক্তিস্বার্থ ও সংঘাত পরিহার করে আমাদের নিজ নিজ দায়িত্বগুলো সুচারুরূপে পালন করি এবং বিশ্ববিদ্যালয় তথা দেশ উন্নয়নে কাজ করি ।

বাদ যোহর হাবিপ্রবি’র কেন্দ্রীয় মসজিদে জাতির জনক ও তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।বিকাল ৬ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শণ নিয়ে একটি ডকুমেন্টরী ফিল্ম প্রদর্শণ করা হবে,সবাইকে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য