দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর বিজিবি সেক্টরের ৩টি ব্যাটালিয়ন গত ৭ মাসে অভিযান চালিয়ে ১১ কোটি ৯০ লক্ষ ৭২ হাজার ৭২৭ টাকা মূল্যের বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য ও গরু মোটাতাজাকরণ ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

দিনাজপুর বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মোঃ আনিসুর রহমান জানান, চলতি বছর ১ জানুয়ারী থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত দিনাজপুর সেক্টরের অধীনস্থ ৩টি বিজিবি ব্যাটালিয়নের ২৯৮ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকায় বিজিবি সদস্যদের চোরাচালান ও মাদক বিরোধী অভিযানে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য ও গরু মোটাতাজাকরণ ট্যাবলেটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১১ কোটি ৯০ লক্ষ ৭২ হাজার ৭২৭ টাকা। এর মধ্যে উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের মূল্য ২ কোটি ৭৮ লক্ষ ৬৬ হাজার ৫২৭ টাকা এবং গরু মোটাতাজাকরন ট্যাবলেটের মূল্য ৯ কোটি ১২ লক্ষ ৬ হাজার ২০০ টাকা। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যগুলো সংশ্লিষ্ট ব্যাটালিয়ন ক্যাম্পে বিধি অনুযায়ী কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ধ্বংস করা হয়েছে।

উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের মধ্যে রয়ছে ৪২ হাজার ৩৬৩ বোতল ও দেড় কেজি ফেন্সিডিল, ১১৩০ বোতল ও ২ কেজি মদ, ৮২ বোতল বিয়ার, ৬৭৬ বোতল এমকে ডাইল, ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮১টি কুপিজেসিক ইনজেকশন, ৩৫৭ বোতল স্ক্যাপ সিরাপ, ১ হাজার ৩৬ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ২২ কেজি গাজা, ৮২ হাজার ৪০০ প্রাকটিন ট্যাবলেট, ১৬০পিস ভায়াগ্রা ট্যাবলেট, ২০০টি যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট, ৮৫২ বোতল যৌন উত্তেজক সিরাপ, ১১১ বোতল নেশা জাতীয় সিরাপ, ৫০০ গ্রাম হেরোইন, ১৪ বোতল বিনাড্রিল সিরাপ, ১৫ লিটার মদ, ১৪৬ বোতল কফিডিল সিরাপ, ১১ হাজার ৫৪ পিস সেনেগ্রা ট্যাবলেট, ২৬৭৫টি এম্পুল ইনজেকশন, ২ হাজার ২৩ বুপরিনরফিন ইনজেকশন, ২ হাজার টি জসিন ইনজেকশন। উদ্ধারকৃত মাদকের বিপরীতে ৭৫০টি মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় দেড় হাজার আসামী রয়েছে। বিজিবির অভিযানে তাৎক্ষনিক গ্রেফতার হয় ৫৫ জন।

এদিকে একই সময় বিজিবির অভিযানে সীমান্ত এলাকা থেকে গরু মোটাতাজাকরণ ২৯ লক্ষ ৭৮ হাজার ১৩০টি ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত ট্যাবলেটের মধ্যে রয়েছে ডেক্সিন ১৬ লক্ষ ৮৬ হাজার ৪৮০টি, কফিমল ৮১ হাজার ৮০০, প্যারোপটিন ১১ লক্ষ ১৯ হাজার ৯০০টি ও নিউসিপ ৮৯ হাজার ৯৫০টি। উদ্ধারকৃত গরু মোটাতাজাকরণ ট্যাবলেটের বিপরীতে সংশ্লিষ্ট থানায় ৭৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় ২১৭ জন আসামী রয়েছে। আসামীদের মধ্যে তাৎক্ষনিক ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

বিজিবির সূত্রটি জানায়, মাদক ও চোরাচালান বিরোধী অভিযান চলমান রয়েছে। বিজিবির ২৯৮ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকার মধ্যে দিনাজপুর সদর, ফুলবাড়ী ও জয়পুরহাটে ৩টি ব্যাটালিয়ন রয়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যাটালিয়নের কর্মকর্তারা তাদের সৈনিকদের নিয়ে প্রতিনিয়ত অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। বিজিবির চোরাচালান ও মাদক বিরোধী টহল জোরদার করতে সীমান্ত এলাকায় রিংরোড নির্মান ও যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য