সিরাজুল ইসলাম বিজয়,তারাগঞ্জ (রংপুর) থেকেঃ রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় বেওয়ারীশ কুকুরের আতংকে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী।

জানাগেছে, উপজেলার কুর্শা ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের ওসমান গনির ছেলে মিরাজ হোসেন (৫) কাজীপাড়া গ্রামের দুলু মিয়ার ছেলে শাকিল মিয়া (১০) অনন্তপুর গ্রামের পারভেজ সরকার রানার মেয়ে রুসা মনি (৬) কে গতকাল শুক্রবার বিকেলে বেওয়ারীশ কুকুর কামড় দেয় ।

একই এলাকার কাজী শাহাজান, কাজী মিজানুর,কাজী বাহারুল বলেন, বেওয়ারীশ একদল কুকুর এসে গরু ছাগলকে আক্রমন করে কামড় দিয়ে পালিয়ে যায় ।

তারা বলেন এভাবে গত দের মাসে শতাধিক গরু ছাগল এর শিকার হয়েছে । বাঙ্গালীপুর গ্রামের মজিদা খাতুন বলেন, মোর গরুক পাগলা কুকুর কামড়াইছে। মোর স্বামী আছিলো অনেকদিন আগোত মরি গেইছে।

একনা গরু বাছুর তাকে পালি কোন রকম দিন কাটাওছো। এখন টাকা কোটে পাও চিকিৎসা করিবার । ঝাকুয়াপাড়া গ্রামের আনারুল ইসলাম বলেন,আমার গাভীকে জলাতঙ্ক রোগে আক্রমন কারী কুকুর কামড় দেয় ।

এরপর আমি অনেক চিকিৎসা করেও গাভীকে সুস্থ করতে পারিনি। শেষে প্রায় তিন মাস পর গাভীটি জলাতঙ্ক রোগে আক্রমন হয়ে মৃত্যু হয়।

কুর্শা ইউপি চেয়ারম্যান আফজালুল হক সরকার বলেন, বর্তমানে বেওয়ারীশ কুকুরের প্রভাব অনেক বেড়ে গেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দাবী জানাচ্ছি।

তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা মোস্তফা জামান বলেন, গত এক মাসে বেশ কয়েক জন কুকুরের কামড়ে চিকিৎসা নিতে এসেছিল । আমি রংপুর সদর হাসপালে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছি।

প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, আসলে আগষ্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বেওয়ারীশ কুকুরের প্রভাব বেশী দেখা যায়। তবে জলাতঙ্ক রোগে আক্রমন কারী কুকুর কামড় দিলে সঠিক চিকিৎসা নিতে হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য