কুড়িগ্রামের রাজারহাটে যুবক খুনকুড়িগ্রামের রাজারহাটে গায়ের হলুদের রং না মুছতেই এক শ্রমিক যুবককে হত্যা করেছে তারই মালিক। ঘটনার পর থেকে ঘাতক মালিক ও তার সহযোগীরা পলাতক রয়েছে। ৬ আগষ্ট সোমবার পুলিশ ওই শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ ও পরিবার জানান, উপজেলার চকিরপশার ইউনিয়নের রতিরাম কমলও ঝাঁ ফুলখাঁর চাকলা গ্রামের সুবল রায়ের নববিবাহিত পুত্র অনন্ত রায়(২৪) উমর মজিদ ইউনিয়নের ঘুমারুভিমশীতলা রাজমাল্লীহাট গ্রামের মৃত জহির উদ্দিনের পুত্র হারুন মিয়ার ট্রাক্টরে শ্রমিকের কাজ করছিল।

ঘটনার দিন গত ৫আগষ্ট রোববার দুপুরে অনন্ত রায় বালুভর্তি ট্রাক্টর নিয়ে রাজমাল্লীহাট চিড়ামিল এলাকায় পৌচ্ছিলে ট্রাক্টরের মালিক হারুন ও তার সহযোগীরা বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে স্লাই রেঞ্জ দিয়ে পিছন দিক থেকে মাথায় আঘাত করলে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলেই অনন্ত মারা যায়।

কৌশলে ওইদিন বিকালে অনন্তের লাশ একটি এ্যাম্বুলেন্সে করে তার বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়। এ সময় এ্যাম্বুলেন্সের চালক হার্ট এ্যাটাক করে অনন্ত রায় মারা গেছে বলে তার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে সটকে পড়ে।

ঘটনার কিছুক্ষণ পর অনন্তের মাথার পিছন থেকে রক্তঝরতে দেখে পরিবারের লোকজন সন্দেহান হয়ে পড়ে। রাতে বিষয়টি রাজারহাট থানায় অবগত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। ৬ আগষ্ট সোমবার লাশের ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় রাজারহাট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে।

৬আগষ্ট সোমবার রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোখলেসুর রহমান ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, অনন্ত রায়ের হত্যার মোটিভ উদঘাটন করা সম্ভব হয়নি। এজন্য রাতেই পুলিশ ঘাতকদের গ্রেফতার করতে অভিযান চালায়। খুনি যেখানেই পালিয়ে থাক তাকে গ্রেফতার করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য