গাইবান্ধায় শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ বিক্ষোভ মিছিল, সকল রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধআরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ নিরাপদ সড়কসহ ৯ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে শনিবার সকাল থেকেই গাইবান্ধা জেলা শহরের টার্মিনাল এলাকায় এবং গাইবান্ধা-পলাশবাড়ি সড়কের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীরা অবরোধ সৃষ্টি করে। এছাড়া ঢাকা-রংপুর মহাসড়কেরও বিভিন্ন স্থানে অবরোধ করে রাখে। এছাড়া জেলা শহরের অভ্যন্তরীন সড়কগুলোতেও শিক্ষার্থীরা অবরোধ করে।

ফলে গাইবান্ধা জেলা শহর থেকে দুরপাল্লা এবং ৭টি উপজেলার অভ্যন্তরীন সকল সড়কে বাস-ট্রাক, মাইক্রোবাসসহ ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। শুধুমাত্র ব্যাটারী চালিত অটোবাইক, অটো রিক্সা ও সিএনজি চলাচল করতে দেখা যায়। তবে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের অ্যাম্বুলেন্সে যাতায়াতের সুযোগ করে দেয় অবরোধকারিরা।

সকাল থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত টার্মিনাল এলাকায় অবরোধ করে রাখার পর শিক্ষার্থীরা নিরাপদসহ ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের শ্লোগান নিয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। অবরোধ চলাকালে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষা করে এবং মটর সাইকেল চালকদের হেলমেট পরার আহবান জানায়।

অবরোধকারিরা সরে আসার পর বাসটার্মিনালে দিনাজপুরের টুনিরহাট থেকে আগত বিআরটিসির বাসটিকে আটক করে বিক্ষুব্ধ পরিবহন শ্রমিকরা। তারা বাসটিতে ভাংচুর করে এবং ড্রাইভার ও যাত্রীদের নামিয়ে দেয়। ফলে বাসটি রাস্তার মাঝখানে আটকা পড়ে। এদিকে দুরপাল্লাসহ অভ্যন্তরীন সকল রুটে বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বাসযাত্রী, অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসার্থে যাতায়াতে এবং জরুরী মালামাল পরিবহনে বিঘিœত হওয়ায় জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে বাস মালিক সমিতির সভাপতি কাজী মকবুল হোসেন মুকুল এবং বাস টার্মিনালের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শ্রমিক নেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, সড়কে যানবাহন, বাস শ্রমিক ও চালকদের কোন নিরাপত্তা না থাকায় তারাই বাস চালাতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে। ফলে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সড়ক থেকে শিক্ষার্থীদের অবরোধ তুলে নেয়া এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হলে দ্রুত যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হবে বলেও তারা আশা প্রকাশ করেন।

অপরদিকে নিরাপদ সড়ক, সড়কের সকল প্রকার নৈরাজ্য বন্ধ করা এবং আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সকল দাবি অবিলম্বে মেনে নেয়ার দাবিতে শনিবার জেলা শহরের ডিবি রোডে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) গাইবান্ধা জেলা শাখা এবং সিপিবি জেলা শাখা মানববন্ধনের কর্মসূচী পালন করে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য