ডেনমার্কে নিকাব পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর প্রতিবাদে বিক্ষোভডেনমার্কে উন্মুক্ত স্থানে মুসলিম নারীদের মুখমণ্ডল আবৃত করে রাখার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে পাস করা আইন গতকাল (বুধবার) থেকে কার্যকর হয়েছে। নিকাব বা বোরকার ওপর আরোপিত এ নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘনকারীকে ১০০০ ক্রোনার (১৫৬ ডলার) জরিমানা দিতে হবে।

ডেনমার্কে উন্মুক্ত স্থানে মুসলিম নারীদের মুখমণ্ডল আবৃত করে রাখার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে পাস করা আইন গতকাল (বুধবার) থেকে কার্যকর হয়েছে। নিকাব বা বোরকার ওপর আরোপিত এ নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘনকারীকে ১০০০ ক্রোনার (১৫৬ ডলার) জরিমানা দিতে হবে।

এ ছাড়া, কেউ বারবার এ আইন লঙ্ঘন করলে তার জন্য ১০,০০০ ক্রোনার (১,৫৬০ ডলার) জরিমানার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো এ নিষেধাজ্ঞাকে নারীর অধিকার লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করেছে। অন্যদিকে আইনটির সমর্থকরা দাবি করছেন, এর ফলে ডেনমার্কের সমাজে মুসলিম অভিবাসী নারীদের মিশে যেতে সুবিধা হবে।

নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার প্রতিবাদে বুধবারই রাজধানী কোপেনহেগেনে শত শত মানুষ বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। বিক্ষোভকারীদের মধ্যে নিকাব পরিহিত অনেক নারী ছিলেন। এ সম্পর্কে ডেনমার্কের বেলিংস্কে পত্রিকা একজন মুসলিম নারীর উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, নেকাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় তিনি দেশটির আইন ও বিচার ব্যবস্থার প্রতি বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছেন।

৩০ বছর বয়সি ওই নারী তুর্কি বংশোদ্ভূত হলেও তিনি ডেনমার্কে জন্মগ্রহণ করে ওই দেশেই বড় হয়েছেন। তিনি বলেন, “আমি বুঝতে পারছি ডেনমার্কের মুসলমানরা অন্য নাগরিকদের সমান অধিকার ভোগ করতে পারছে না। এটি এদেশের রাজনৈতিক নেতৃত্বের ভণ্ডামিপূর্ণ আচরণ ছাড়া আর কিছু নয়।”

গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ইউরোপীয় দেশগুলোতে নিকাব নিষিদ্ধ করার বিষয়টি ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। ডেনমার্কের আগে ফ্রান্স, বেলজিয়াম, অস্ট্রিয়া ও জার্মানিতে বোরকার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য