লালমনিরহাটে খুনিরা গর্তও খুঁড়ে আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: চাকরি দেয়ার কথা বলে হাতিয়ে নেয়া আট লাখ টাকা উদ্ধার করতে হত্যার শিকার হন লালমনিরহাটের সার ব্যবসায়ী গোলাম হোসেন। মরদেহ পুঁতে রাখতে সদ্য রোপণ করা ধানক্ষেতে গর্ত খুঁড়ে রাখে খুনিরা।

মঙ্গলবার (৩১জুলাই) নিহতের ছেলে জাহেদুল ইসলাম বাদী হয়ে ওই চক্রের বিরুদ্ধে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে নিজ শয়নকক্ষ থেকে সার ব্যবসায়ী গোলাম হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

নিহত গোলাম হোসেন উপজেলার চলবলা ইউনিয়নের নিথক অচিনতলা গ্রামের মৃত দবির উদ্দিন ছেলে। তিনি স্থানীয় চাকলারহাট সীমান্ত সিনেমা হল মার্কেটের সার ব্যবসায়ী ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গোলাম হোসেনের বড় ছেলে কৃষি ডিপ্লোমাধারী জাহেদুল ইসলামকে চাকরি দেয়ার নামে তিন বছর আগে আট লাখ টাকা নেন পাশের গোড়ল ইউনিয়নের বালাপাড়া গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে আশরাফুল আলম। এরই মাঝে চাকরিতে যোগদানের কথা বলে জাহেদুলকে ঢাকায় নিয়ে যান, কিন্তু চাকরি দিতে ব্যর্থ হন আশরাফুল।

চাকরির আট লাখ টাকা ফেরত দাবি করলে উভয়ের মাঝে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। স্থানীয়ভাবে সালিশ-বৈঠকে চার লাখ টাকা ফেরত দেয়ার জন্য একটি চেক দেন আশরাফুল। কিন্তু সেই চেকের বিপরীতে হিসাব নম্বরে কোনো টাকা ছিল না। এ টাকা উদ্ধার করতে চেকদাতা আশরাফুলের বিরুদ্ধে আদালতে একটি চেক জালিয়াতির মামলা করেন গোলাম হোসেন।

সেই মামলায় সোমবার (৩০ জুলাই) রায় ঘোষণার কথা থাকলেও আসামি পক্ষের আইনজীবী আদালতে সময় চেয়ে আবেদন করেন। ফলে রায় ঘোষণার জন্য ২৮ আগস্ট দিন ধার্য করে আদালত।

আদালত থেকে বাড়ি ফিরে সোমবার (৩০ জুলাই) মধ্যরাতে নিজ ঘরে হত্যার শিকার হন মামলার বাদী গোলাম হোসেন। মঙ্গলবার ভোরে স্থানীয়দের খবরে মরদেহ উদ্ধার করে এবং সন্দেহভাজন হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আশরাফুলকে আটক করে পুলিশ।

নিহত গোলাম হোসেনের বাড়ির সামনে সদ্য রোপণ করা তারই ধানক্ষেতে প্রায় চার ফুট দৈর্ঘ্যের একটি গর্ত খুঁড়ে রাখে ঘাতকরা। স্থানীয়দের ধারণা, ঘাতকরা গোলাম হোসেনের মরদেহটি ওই গর্তে পুঁতে রাখার পরিকল্পনা করেছিল।

নিহতের ভাতিজা ফজলুল করিম জানান, গোলাম হোসেনের তিন ছেলের দুই ছেলে মানসিক প্রতিবন্ধী।

দুপুরে ঘটনাস্থলে তদন্ত আসা লালমনিরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনএম নাসিরদ্দিন বলেন, পাওনা আদায়কে গুরুত্ব দিয়ে অন্যসব দিক বিবেচনা নিয়ে মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে। মামলায় আটক আশরাফুলকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য