কাহারোলের জিপিএ-৫ প্রাপ্ত দরিদ্র বাদাম মনিরুলকে অনুদান কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের কাহারোলে এইচ,এস,সি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে বাদাম বিক্রেতার ছেলে মোঃ মনিরুল ইসলাম।

জানা যায়, চলতি বছরে এইচ,এস,সি পরীক্ষায় কাহারোল উপজেলার বুলিয়া বাজার কলেজ থেকে মোঃ মনিরুল ইসলাম পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে।

প্রকাশিত এইচ,এস,সি পরীক্ষার ফলাফলে দরিদ্র ও অসহায়, বাদাম বিত্রেতার মেধাবী ছেলে মোঃ মনিরুল ইসলাম জিপিএ-৫ পেয়েছে। সে উপজেলার তাড়গাঁও ইউনিয়নের তারাপুর গ্রামের মোঃ জিয়ারুল হকের ছেলে।

এই মেধাবী ছাত্র মোঃ মনিরুল ইসলামের পিতা মোঃ জিয়ারুল হক উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে ফেরী করে বাদাম বিক্রির লাভাংশ দিয়ে অতিকষ্টে পরিবার পরিজন নিয়ে কোনো মতে জীবিকা নির্বাহ করার পাশাপাশি ছেলেমেয়েদের পড়ালেখার খরচও বহন করে আসছেন।

দরিদ্র পিতার ঘরে মেধাবী ছাত্রের এই অসাধারণ কৃতত্বের জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ভবিষ্যতে তার শিক্ষা সহায়তার জন্য সু-হৃদয়বান ও শিক্ষানুরাগী অত্র উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসিম আহমেদ তাকে ৫ হাজার টাকা সহায়তা প্রদান করে এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন কাহারোল বাসীর মাঝে।

মেধাবী ছাত্র মোঃ মনিরুল ইসলামের পিতা বাদাম বিক্রেতা মোঃ জিয়ারুল হকের সঙ্গে কথা হলে তিনি অশ্রু সজল ভরাক্রান্ত মন ও আনন্দের সঙ্গে জানান, আমার সংসারে ৩ জন ছেলেমেয়ের মধ্যে প্রথম বড় ছেলে ও ছোট ২ টি মেয়ে রয়েছে। বর্তমানে ৩ ছেলেমেয়েই পড়ালেখা করে আসছে।

আমার একমাত্র উপার্জনের পথ ফেরী করে বাদাম বিক্রি করা ছাড়া আর কোন পথ নেই। আর এই বাদাম বিক্রি করে কোনো মতে অভাবের মধ্যে দিয়ে সংসার পরিচালনা করি এবং ছেলেমেয়েদের পড়ালেখার চালাই। কিন্তু বাদাম বিক্রি করে সংসার চালানো আমার পক্ষে খুবই কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

ভবিষ্যতে উচ্চ শিক্ষার জন্য আমার ছেলে কিভাবে পড়ালেখা করবে তা নিয়ে আমি এখন অতি চিন্তিত হয়ে পড়েছি। অনুদান বিতরণ কালে এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মামুনুর রশীদ চৌধুরী, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এ,কে,এম ফারুক, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ শামীম ও মেধাবী ছাত্র জিপিএ-৫ প্রাপ্ত মনিরুল ইসলামের পিতা মোঃ জিয়ারুল হক প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য