চিলমারীতে প্রচন্ড খরায় পাট পঁচাতে পারছেন না কৃষককুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় গত তিনমান যাবৎ বৃষ্টিপাত না হওয়ায় প্রচন্ড খরায় উপজেলার খাল-বিল, পুকুর ডোবার পানি শুকিয়ে যাওয়ায় পাট চাষীরা পাট পঁচাতে না পেরে পাট নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছে।

বর্ষা মৌসুমের প্রায় শেষ প্রান্ত হলেও বৃষ্টিপাত না হওয়ায় কৃষকরা রোপা আমন রোপন শুরু করতে পারেনি। বর্ষা মৌসুম শুরুর প্রায় তিন মাস পূর্বে কিছু বৃষ্টিপাত হলেও মে, জুন ও জুলাই মাসে কোন প্রকার বৃষ্টিপাত হয়নি।

ফলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে জন জীবন অতিষ্ঠিত পড়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গরম জনিত রোগ জ্বর ও কাশিতে শিশু ও বৃদ্ধরা আক্রান্ত হচ্ছে। চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৩ হাজার ১শত হেক্টর জমিতে তোষাপাটের চাষ করা হলেও পাট গাছ পঁচাতে না পারায় চাষীরা পাট কাটতে পারছে না।

কতিপয় কৃষক পাট কাটলেও পানি না থাকায় তা জমিতেই শুকে যাচ্ছে। কেউ কেউ অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে নিয়ে গিয়ে দূরে কোন জলাশয়ে পাটগাছ পঁচানোর চেষ্টা করছে।

গাবের তল এলাকার কৃষক সাজু মিয়া জানান, ৫একর জমিতে তোষাপাটের চাষ করলেও পানির অভাবে পাট কাটতে পারছে না। রাণীগঞ্জ এলাকার নুর ইসলাম জানান, বৃষ্টিপাত না হওয়ায় রোপা আমনের চারা রোপন শুরু করতে পারেনি।

অতিরিক্ত তাপদাহে রোপা আমনের বীজতলার চারা শুকিয়ে মরে যাচ্ছে। চলতি মৌসুমে রোপ আমনের লক্ষ্য মাত্রা ১০ হাজার হেক্টর হলেও বৃষ্টিপাতের অভাবে অর্জনের সম্ভাবনা না থাকায় কৃষকেরা চরম হতাশায় দিন কাটাচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য