বিএসএফের বুলেটে আহত রাসেল চোখের দৃষ্টি ফেরাতে ভারতেচোখের দৃষ্টি ফেরাতে ভারতে গেলেন কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) এর ছোঁড়া রাবার বুলেটের স্প্রিন্টের আঘাতে গুরুতর আহত স্কুল ছাত্র রাসেল মিয়া (১৪)।

অবশেষে বিএসএফের রাবার বুলেটে মারাত্বক আহত স্কুলছাত্র রাসেলের চিকিৎসার ব্যয়ভার গ্রহন করেছে ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই-কমিশন। সকল প্রস্তুতি শেষে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে ভারতীয় এয়ারওয়েজের দিল্লীর উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছে রাসেলসহ তার বড় ভাই রেজাউল। দিল্লীর অওগঝ হাসপাতালে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হবে।

দীর্ঘ এক মাস ধরে ঢাকা জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনিস্টিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসা করেও বাংলাদেশি স্কুল ছাত্র রাসেল মিয়ার ডান চোখটির আলো ফেরাতে পারেনি। অবশেষে এক মাস চিকিৎসা শেষে স্কুল ছাত্র রাসেল মিয়া ডান চোখটি অন্ধ হয়ে পরিবারে কাছে ফিরে আসে।

স্কুলছাত্র রাসেল বিএসএফের ছোঁড়া রাবার বুলেটের স্প্রিন্টের আঘাতে গুরুতর আহতের বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে আইন ও শালিস কেন্দ্র (আসক) আহত স্কুল ছাত্র রাসেলের খবর নিতে ঢাকা জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনিস্টিটিউট হাসপাতালে যান।

পরে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে আইন ও শালিস কেন্দ্রের কর্মকর্তা ফরিদ মিয়া ও হাসিবুর রহমান ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই-কমিশন গিয়ে আহত রাসেলের উন্নত চিকিৎসার জন্য আবেদন করেন। আবেদন করায় অবশেষে আহত স্কুল ছাত্র রাসেলের ভারতের উন্নত চিকিৎসার জন্য তার পরিবারকে আশ্বাস প্রদান করেন ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই-কমিশন ।

সে অনুযায়ী বিমান যোগে রাসেল ও তার জ্যাটাত ভাই রেজাউল ইসলামের ভারতে যাওয়ার সব ধরনের ধরনের ব্যবস্থা করেছে ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই-কমিশনের ফাস্ট জেনারেল সেক্রেটারী শ্রী রাজেশ চন্দ্র রায়।

আহত স্কুলছাত্র রাসেল ও তার বড় ভাই রুবেল ইসলাম ভারত যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,বাংলাদেশ ইয়ারলেন্স একটি বিমান হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ঢাকা থেকে ভারতের রাজধানী দিল্লীর উদ্দেশ্যে রহনা দেয়। আহত স্কুল ছাত্র রাসেলের ও বড় ভাই রুবেল ইসলাম তার ছোট ভাইয়ের জন্য দোয়া চেয়েছেন।

উল্লেখ্য,গত ৩০ এপ্রিল বিকালে ফুলবাড়ী উপজেলার গোড়কমন্ডল সীমান্তে আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার ৯৩০/৮ এর পাশে বাংলাদেশের ২০ গজ অভ্যন্তরে রাসেল বন্ধুদের সঙ্গে গরুর ঘাস কাটতে গেলে ৩৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের টহলরত বিএসএফ সদস্য তাদেরকে লক্ষ্য করে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এতে অন্যরা অক্ষত থাকলেও স্কুলছাত্র রাসেলের মুখমন্ডলে রাবার বুলেট বিদ্ধ হয়।

পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ফুলবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রাইম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য জাতীয় চক্ষু, বিজ্ঞান ইনিস্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবশেষে দীর্ঘ একমাস চিকিৎসা শেষে গত ১ লা জুন আহত রাসেল তার ডান চোখটি অন্ধ হয়ে বাড়ীতে ফিরে আসে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য