পর্ণোগ্রাফিতে আগ্রহ বাড়ছে তরুণীদেরপর্নোগ্রাফি দর্শকের বড় অংশই হলো পুরুষ, এমন ধারণা আমাদের সবার। একাংশে সত্য হলেও এই ধারণা কত দিন টিকবে, তা বলা মুশকিল। নীল ছবির বিষয়ে আগ্রহ এখন নারীদেরও কম নয়। বিশেষ করে, আশির দশকের পর জন্মানো নারীদের পর্নোগ্রাফির প্রতি আগ্রহ একটু বেশিই বটে! এগুলো মনগড়া কথা নয়, রীতিমতো গবেষণালব্ধ ফল। এ নিয়ে বিস্তারিত খবর এসেছে টাইমস অব ইন্ডিয়ায়।

মিক ডটকম নামে একটি ওয়েবসাইটের জন্য এই গবেষণা করেছে পর্নো মিডিয়ার শীর্ষস্থানীয় ওয়েবসাইট পর্নহাব। গবেষণায় দেখা যায়, পুরুষের পাশাপাশি এখন ২৪ শতাংশ নারীও পর্নোগ্রাফির বিষয়ে আগ্রহী। এই হার সাম্প্রতিক সময়ে বেশ বেড়েছে।

গবেষণার বক্তব্য, দর্শকের অনুপাতে সমতা সৃষ্টির একটা প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। সে ক্ষেত্রে পরে নীল ছবি নির্মাণে নারী ও পুরুষ—দুয়েরই ফ্যান্টাসিকে গুরুত্ব দেওয়া হবে।

এখনকার সময়ের দর্শক নীল ছবি দেখার ক্ষেত্রে প্রথম প্রাধান্য দিচ্ছে স্মার্টফোনকে। দর্শকের ৬০ শতাংশ ‘দেখার’ কাজটুকু সারে স্মার্টফোনের মাধ্যমে, অন্যদিকে কম্পিউটার ব্যবহার করে ৩৩ শতাংশ।

আগ্রহের ব্যাপারে আরেকটি মজার বিষয়, এখনকার তরুণদের চেয়ে বরং বয়স্করাই নীল ছবির বিষয়ে বেশি আগ্রহী! ১৯৮০-এর পরে জন্মানো দর্শক যেকোনো পর্নোসাইটে অবস্থান করে সোয়া ৯ মিনিট, অন্যদিকে বয়স্করা সোয়া ১০ মিনিট!

শুনলে অবাক হবেন, ‘লেসবিয়ান’ ক্যাটাগরির পর্নোগ্রাফি অনলাইনে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়। কিন্তু গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, সত্যিকারের লেসবিয়ানরা এই ক্যাটাগরি খোঁজে না; বরং সাধারণ মানুষেরই এই ক্যাটাগরিতে বেশি আগ্রহ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য