বিরলে তিন শতাধিক ফলজ গাছের চারা উপড়ে ফেলেছে দূর্বৃত্তরাদিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ৭১ শতক জমির উপর রোপনকৃত তিন শতাধিক ফলজ গাছের চারা কেটে ও উপড়ে ফেলেছে দূর্বত্তরা।

মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) দিবাগত রাতের আঁধারে উপজেলার ১০নং রাণীপুকুর ইউপির হালজায় গ্রামে প্রতিপক্ষের লোকজন এ কাজ করে।

জমি ও বাগানের মালিক মো. কামরুজ্জামান জানান, তাঁর প্রতিপক্ষের লোকেরা সম্পূর্ণ প্রতিহিংসামূলকভাবে গাছ কর্তন ও উপড়ে নিয়ে গেছে। তারা আইনের মাধ্যমে এবং কাগজপত্রে নিজেদের সঠিক হিসেবে প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েই এ কাজ করেছে বলে দাবী করেন তিনি।

তিনি জানান, এ জমি নিয়ে বিরোধে উভয় পক্ষকে নিয়ে একাধিকবার মিমাংসায় বসা হয়েছে। আমাদের সমস্ত কাগজপত্র প্রদর্শন করেছি। আমার বাবা উক্ত জমিটি ১৯৮৩ সালে জমির রেকর্ডধারী মালিক ওসমান ও আসাদের নিকট থেকে ক্রয় করেন।

যার কাছ থেকে ক্রয় করা হয়েছিল তিনি ১৯৪৩ সালে শহরু, মঙ্গলু ও বাঙ্গালের নিকট থেকে ক্রয় করেছিলেন। এ নিয়ে এতোদিন কোন দাবী না থাকলেও হঠাৎ এখন জমির দাবী নিয়ে সামনে এসেছেন, কিন্তু কাগজপত্র বা প্রমান প্রদর্শন করতে পারছেন না। সম্পূর্ণ গায়ের জোরে প্রভাব খাটানোর অপচেষ্টা করছেন।

সর্বশেষ মাস তিনেক আগে বিরল থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ও জগৎপুর ফাঁড়ি ইনচার্জ যৌথভাবে উভয়পক্ষকে ডেকে বিষয়টি মিমাংসা করে দেন।

তারা আমাদের প্রতিপক্ষ একই এলাকার কৃষ্ণ কড়া, নগেন কড়া, বিমান কড়া, ছাতল কড়া, বিজলী কড়া, কেদু কড়া, আগনা কড়াসহ জমির আকষ্মিক দাবীদারদেরকে কাগজপত্র প্রদর্শন ছাড়া জমিতে না যাবার নির্দেশনাও প্রদান করেন। এরপর আমরা জমিতে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করি এবং প্রায় দেড় লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন ফলজ গাছের চারা রোপন করি।

হঠাৎ গতকাল (মঙ্গলবার) দিবাগত রাতে তারা আমার সমস্ত গাছের চারা উপড়ে নিয়ে যায়। প্রশাসনকে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নেয়ার দাবী জানান তিনি। সেই সাথে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য