গ্রিসে ভয়াবহ দাবানলে নিহতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়েছেগ্রিসের রাজধানী এথেন্সের পাশে আত্তিকার বনাঞ্চলে থেকে লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়া দাবানলে নিহতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়েছে। দেশটির শত শত অগ্নিনির্বাপন কর্মী আগুন নেভাতে ব্যর্থ হওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান জানানো হয়েছে। ইতোমধ্যে আহত হয়েছে আরও শতাধিক মানুষ। বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে হাজার হাজার মানুষ।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সোমবার অ্যাথেন্স থেকে প্রায় ৫৫ কিলোমিটার পশ্চিমে উপকূলীয় বসতি কিনেতার পাশের বনে প্রথম এই আগুনের সূত্রপাত হয়। মঙ্গলবারের মধ্যে তা পুরো রাজধানীর চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে।

আত্তিকা অঞ্চলের সহকারী মেয়র গিরগোস কোককোলিস ও রেড ক্রসের উদ্ধারকর্মীদের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) সকালে রাফিনা শহরের কাছে ২৬টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর ফলে সেখানে নিহতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়েছে। এর আগে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ২৪ নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছিল।

গ্রিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানিয়ছেন, তারা তাৎক্ষণিকভাবে নিহত বাড়ার খবরটি নিশ্চিত করতে পারছেন না। কারণ এখন সব লাশ হাসপাতালে এসে পৌঁছায়নি। তবে ফায়ার সার্ভিসের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মঙ্গলবার সকালে সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, কমপক্ষে ৪৯ জন মারা গেছেন।

কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যমতে, ১৫০ জনের বেশি মানুষ এই দাবানলে আহত হয়েছেন। এছাড়া অবকাঠামো ও যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আক্রান্ত এলাকার লোকজনে অন্যত্র চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে সরকারের মুখপাত্র দিমিত্রিস টিজানাকোপোওলস জানিয়েছেন, বেশিরভাগ ভুক্তভোগীই এথেন্সের ৪০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বদিকের ‘মাটি’ অবকাশযাপন কেন্দ্রে আটকে পড়েছিল। নিহতের বেশিরভাগই নিজেদের বাড়ি বা গাড়ির মধ্যে ছিল। এখন আগুন নেভানোর পাশাপাশি নিহত ও অন্যান্য নিখোঁজ ব্যক্তিদের অনুসন্ধানও চলছে।

এই দাবানলের অনেক ভিডিও ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এসব ভিডিওতে দেখা যায়, দাবানলে অনেক ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কমলা রঙের ধোঁয়ায় আকাশ ছেয়ে গেছে। আর লোকজন গাড়িতে করে ওই এলাকা ছেড়ে পালাচ্ছেন।

উদ্ধার তৎপরতা আগুন নিয়ন্ত্রণ কাজ সমন্বয় করার জন্য গ্রিসের প্রধানমন্ত্রী অ্যালেক্স টিসিপরাস বসনিয়ায় তার সরকারি সফর বাতিল করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণে মানুষের পক্ষে যা কিছু করা সম্ভব আমরা তা করবো। তবে অগ্নিকর্মীরা বলছেন, এই আগুন নিয়ন্ত্রণ করা অনেক কঠিন।

প্রধানমন্ত্রী অ্যালেক্স টিসিপরাস বলেছেন, সব জরুরি বাহিনীকে কাজে লাগানো হয়েছে। আর এথেন্সের চারপাশের আত্তিকা অঞ্চলে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। গ্রিস সরকারের পক্ষ থেকে অন্যান্য ইউরোপীয় দেশের কাছে হেলিকপ্টার ও অন্যান্য অগ্নিনির্বাপন সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

সোমবার সকালে আগুন অনিয়ন্ত্রিতভাবে ছড়িয়ে পড়ায় এথেন্সের কাছের উপকূলীয় অঞ্চলের বাসিন্দাদের তাদের বাড়ি থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাওয়ার জন্য বলা হয়। এছাড়া হলিডে ক্যাম্প থেকে শত শত শিশুকেও সরিয়ে নেওয়া হয়।

মঙ্গলবার দাবানলের আগুন এথেন্সের ব্যস্ততম সড়কের কাছে চলে এসেছে। রাজধানীর সব ট্রেন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আর এথেন্সের আকাশ জুড়ে বিশাল ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে।

উদ্ধার কর্মীরা বাতাসের বেগ কমার আশায় আছেন। কিন্তু আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার অবস্থা আরও প্রতিকূলে চলে যেতে পারে। ইতোমধ্যে সেখানকার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য