গণপিটুনি ইস্যুতে সংসদ চত্বরে তৃণমূল এমপিদের বিক্ষোভ প্রদর্শনভারতের পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল এমপিরা গণপিটুনি ইস্যুতে সংসদ চত্বরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন। আজ (মঙ্গলবার) সংসদ চত্বরে তৃণমূল এমপিরা ‘গণপিটুনি বন্ধ হোক’, ‘বিদ্বেষের রাজনীতি বন্ধ হোক’, ইত্যাদি প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

আজ সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় তৃণমূল এমপি শান্তা ছেত্রী রাজস্থানের আলওয়ারে সাম্প্রতিক গণপিটুনির কথা উল্লেখ করে সরকার এ ধরনের ঘটনা বন্ধ করতে কী পদক্ষেপ নিচ্ছে সে সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করেন। ওই ইস্যুতে বেশ কিছু এমপি তাকে সমর্থন করেন। রাজ্যসভার চেয়ারম্যান এম বেঙ্কইয়া নাইডু বলেন, হাউসের দাবি গণপিটুনি বন্ধ করতে আইন আনা হোক।

আজ সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভায় গণপিটুনি ইস্যুতে বিরোধী সদস্যরা সোচ্চার হন। রাজস্থানের আলওয়ারে সম্প্রতি স্বঘোষিত গোরক্ষকদের গণপিটুনিতে আকবর খান নামে এক দুধ ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। কংগ্রেস এমিপিরা আজ সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির মাধ্যমে ওই ঘটনার তদন্ত দাবি করেন।

লোকসভায় কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা মল্লিকাঅর্জুন খাড়গে আলওয়ারের ঘটনা উল্লেখ করে বলেন, ‘ওই ঘটনায় পুলিশও অপরাধীদের সঙ্গে ছিল। সচিব পর্যায়ের তদন্তে কিছু হবে না, বরং এজন্য সুপ্রিম কোর্টের বর্তমান বিচারপতি দিয়ে তদন্ত করা উচিত।’

লোকসভায় তৃণমূল এমপি সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় গণপিটুনি ইস্যু উল্লেখ করে বলেন, ‘গণতান্ত্রিক পদ্ধতির জন্য এটা হুমকি ও বিপজ্জনক বিষয়। সরকারকে এ ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া এবং এ ব্যাপারে সমস্ত দলকে এক সুরে সোচ্চার হওয়া উচিত।

সিপিএমের এমপি মুহাম্মদ সেলিম বলেন, ‘গোটা দেশে বিদ্বেষের আগুন ছাড়ানো হচ্ছে। গরুর নামে মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। যদি আমরা হত্যাকারীদের মালা পরাতে থাকি তাহলে এধরণের ঘটনা ঘটবে।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি এধরণের ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিরা আদালত থেকে জামিন পেলে তাদেরকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়ন্ত সিনহা ফুলের মালা পরিয়ে অভ্যর্থনা জানানোয় বিতর্ক সৃষ্টি হয়। সিপিএম এমপি মুহাম্মদ সেলিম আজ সংসদে সেই প্রসঙ্গের দিকে ইঙ্গিত করে অভিযোগ করেন।

আজ সরকার পক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তার সাফাইতে বলেন, ‘এ সম্পর্কে আমাদের চিন্তা আছে। এটা সম্প্রতি শুরু হয়নি। এ ধরণের ঘটনা বহু বছর ধরে হয়ে আসছে। এ নিয়ে রাজনীতি হওয়া উচিত নয়। আমি আগেও বলেছি, সবচেয়ে বড় গণপিটুনির ঘটনা ঘটেছিল ১৯৮৪ সালে। গণপিটুনি নিয়ে আমাদের সরকার উচ্চস্তরীয় কমিটি গঠন করেছে। প্রয়োজনে আইন তৈরি করা হবে।’

রাজস্থানের আলওয়ারে সম্প্রতি গোরক্ষকদের গণপিটুনিতে আকবর খান নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে আসলাম নামে অন্য একজন পালিয়ে যেতে সমর্থ হওয়ায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য