বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করলেন হাইতির প্রধানমন্ত্রীজ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির প্রস্তাবের প্রতিবাদে কয়েকদিন ধরে চলা সহিংস প্রতিবাদের মুখে পদত্যাগ করেছেন হাইতির প্রধানমন্ত্রী জ্যাক গি লেফনটন্ট।

শনিবার রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্সে হাইতি কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে দেওয়া এক বক্তৃতায় তিনি জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট জোভনেল মোয়িস তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন।

সহিংস প্রতিবাদ ও দাঙ্গা চলাকালে কংগ্রেসে প্রধানমন্ত্রী লেফনটন্টের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোটের প্রস্তাবও উঠেছিল।

দাঙ্গায় এ পর্যন্ত অন্তত চার জন নিহত হয়েছেন। দোকানপাট ও বিভিন্ন ভবনে লুটপাট চালানোর পর সেগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

সরকার জ্বালানির ওপর ভর্তুকি তুলে দেওয়ার প্রস্তাব করার পর থেকেই অস্থিরতা শুরু হয়। ভর্তুতি তুলে দিলে পেট্রলের দাম ৩৮ শতাংশ, ডিজেলের দাম ৪৭ শতাংশ ও কেরোসিনের দাম ৫১ শতাংশ বৃদ্ধি পেতে পারে।

প্রতিবাদ বিক্ষোভের মুখে রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্স অচল হয়ে পড়ে। নগরীর বহু দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালানো হয়। সহিংস প্রতিবাদের মুখে সংস্কারের সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে আসে সরকার।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে দেশটি আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গে একটি সমঝোতা চুক্তি করেছিল। ওই চুক্তিতে প্রবৃদ্ধি বাড়াতে কাঠামোগত সংস্কার শুরু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল হাইতি সরকার।

আইএমএফের পরামর্শ ছিল, জ্বালানি থেকে ভর্তুকি তুলে নিলে অর্থের সাশ্রয় হবে এবং ওই অর্থ শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও নতুন কর্মক্ষেত্র তৈরিতে ব্যবহার করা যাবে।

এর আগে ২০১৫ সালেও দেশটিতে জ্বালানি নিয়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়েছিল; তখন জ্বালানির মূল্য হ্রাসের দাবিতে লোকজন রাস্তায় নেমে এসেছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য