Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
09 24 18

সোমবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই মুহাররম, ১৪৪০ হিজরী

Home - জেনে রাখুন - চুল পাকা সমস্যার ঘরোয়া সমাধান

চুল পাকা সমস্যার ঘরোয়া সমাধান

চুল পাকা সমস্যার ঘরোয়া সমাধানবয়স বাড়ার সাথে সাথে মাথার চুল পেকে সাদা হয়ে যাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আজকাল দেখা যায়, চুল পাকার যেনও কোন বয়স নাই।খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক পরিশ্রমের অভাব, খাবারে নানা কেমিকেলের উপস্থিতি,পর্যপ্ত ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার না খাওয়া, দুঃশ্চিন্তা, হরমোনের ভারসাম্যহীনতাসহ নানা কারণে অল্প বয়সেই পাক ধরতে পারে চুলে। এতে অনেকেই অস্বস্তিতে ভোগেন।কিন্তু প্রাকৃতিক উপায়ে খুব সহজেই ঘরে থাকা নানা উপাদান দিয়ে আমাদের চুল পড়া রোধ করতে পারি।

App DinajpurNews Gif

তাই আসুন জেনে নেই চুল পাকা রোধের ঘরোয়া কিছু টিপসঃ

গাজরের রস :

গাজর একটি পুষ্টিকর সবজি উপাদান। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও মিনারেলের সিংহভাগ গাজর একাই পূরণ করার ক্ষমতা রাখে। চুলের যত্নেও গাজর বেশ কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে। তাই বাজার থেকে গাজর কিনে এনে সেটিকে ব্লেন্ডারে পানি, চিনি মিশিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। গাজরের যে জুস পাওয়া যাবে, সেটি নিয়মিত পান করুন। প্রতিদিন অন্তত একগ্লাস করে গাজরের রস পান করলেই আপনার পাকা চুলের প্রতিকার পাওয়া শুরু করবেন। শুধু চুল নয়, সেইসাথে আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতেও এই গাজরের জুস সাহায্য করবে। আর ত্বক হবে উজ্জ্বল লাবন্যময়।

আলুর খোসাঃ

পাঁচটি আলুর খোসা ছাড়িয়ে নিন। একটি পাত্রে দুই গ্লাস গরম পানি বসান। এতে আলুর খোসা দিয়ে গরম করুন। পানি ফুটতে শুরু করলে আরো পাঁচ মিনিট রাখুন। এরপর চুলা থেকে নামান। একটি বাটিতে মিশ্রণ ছেঁকে আলুর খোসা ফেলে দিন। মিশ্রণটি ঠান্ডা করুন। চুল ভালো করে ধুয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি মাথায় লাগিয়ে হাল্কা করে ম্যাসাজ করুন। আধা ঘন্টা রেখে দিন। এরপর চুল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কয়েকদিন ব্যবহারে আপনার সাদা চুল কালো হয়ে যাবে।

আমলকি ও লেবুর রস মিশ্রণ :

আমলকি ও লেবু এই দুটো ফলের পুষ্টি গুণ অত্যন্ত বেশি। শরীরের মেদ কমানো, হৃদপিন্ডের সমস্যা ইত্যাদি অভ্যন্তরীণ সমস্যার পাশাপাশি চামড়ার ইনফেকশন এবং মাথার চামড়ার জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন যোগান দেয়ার ক্ষেত্রে এই দুটো ফলের জুড়ি নেই। তাই অকালে চুল পাকা রোধের জন্য বাজার থেকে আমলকির গুঁড়া কিনে এনে তা লেবুর রসের সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন ১ ঘণ্টা করে মাথার চামড়ায় ম্যাসাজ করুন, তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফলাফল নিজেই টের পাবেন।

নারিকেল তেল এবং লেবুর রস :

চুলের যত্নে নারিকেল তেলের জুড়ি নেই। আর লেবুর গুণাগুন তো আগেই ব্যাখ্যা করা হয়েছে। পাকা চুলের হাত থেকে রেহাই পেতে হলে প্রতিদিন ৪ চা চামচ নারিকেল তেলের সাথে আড়াই চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে উক্ত মিশ্রণ চুলের গোড়ায় এবং মাথার চামড়ায় লাগান। দুই সপ্তাহের মধ্যেই পাকা চুল কালো হয়ে উঠবে। তার পাশাপাশি আপনার মাথার চামড়া সুস্থ থাকবে, খুশকি হবে না এবং চুলও হবে উজ্জ্বল।

পেঁয়াজ বাটা :

মশলা হিসেবে বাংলাদেশে কমবেশি সব রান্নাঘরেই পেঁয়াজ থাকে। আর পেঁয়াজ বাটা চুল পাকা রোধের অত্যন্ত কার্যকরী অস্ত্র। পেঁয়াজ ভালোমত বেটে নিয়ে প্রতিদিন কিছুক্ষণ মাথার চামড়ায় ও চুলে ম্যাসাজ করলে এবং চুলে পেঁয়াজ বাটা শুকিয়ে ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেললে অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই পাকাচুল কালো হয়ে যাবে। শুধু তাই নয়, চুল পড়া বন্ধ হয়ে নতুন চুল গজাতে শুরু করবে।