রজব আলী, ষ্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শিশু মীরাজ হত্যার রহষ্য উদ্ধার করেছে পুলিশ। মুলহত্যাকারীসহ সহযোগী ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার দিবাগত রাতে তাদের আটক করা হয়।

আটক কৃতরা হলেন পশ্চিম খাজাপুর গ্রামের মৃত মীর উদ্দিনের ছেলে মমতাজ উদ্দিন (৫২), মমতাজ উদ্দিনের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৩২) মোস্তাফিজুর রহমান এর স্ত্রী জেসমিন আরা রুবী (৩০) ও মৃত মীর উদ্দিনের মেয়ে মর্জিনা বেগম (৫৫)। আজ মঙ্গলবার তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

আটককৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফুলবাড়ী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুলতান মাহামুদ। তিনি বলেন আটক কৃতদের দেয়া তথ্য মোতাবেক ঘটনাস্থল থেকে হত্যার আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার ধৃত আসামীদের জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার সকাল ৭ টায় মীরাজ কাজিম নামে ৫ বছর বয়ষী এক শিশুর মৃতদেহ, উপজেলা এলুয়াড়ী ইউনিয়নের পশ্চিম খাজাপুর গ্রামে একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

শিশুটির মুতদেহে একাধিক আঘাত ও যখমের চিহ্নি পাওয়া যায়, এই কারনে শিশুটি হত্যা কান্ডের শিকার হয়েছে মর্মে প্রাথমিক তদন্তে দেখা গেলে, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই শিশুটির প্রতিবেশি মমতাজ উদ্দিন নামে এক ব্যাক্তিকে আটক করে পুলিশ।

তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে, তার দেয়া তথ্য মোতাবেক অন্য আসামীদের আটক করা হয় এবং আলামত সংগ্রহ করা হয়।

নিহত শিশু মীরাজ কাজিম পশ্চিম খাজাপুর গ্রামের মাহাবুব কাজির ছেলে। মাহাবুব কাজির এক ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে মীরাজই একমাত্র ছেলে সন্তান ছিল। এই ঘটনায় শিশু মীরাজ কাজিমের পিতা মাহাবুবব কাজি বাদি হয়ে ওই দিন রাতে ফুলবাড়ী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য