জুলাই মাসে দ্বিতীয় দফায় আত্মঘাতী হামলার কবলে পড়লো আফগানিস্তানের জালালাবাদ। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, হামলায় অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছেন। এরমধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর দুই সদস্যও ছিলেন।

চলতি মাসের ১ তারিখে শিখদের লক্ষ্য করে চালানো হামলায় ১৯ জন নিহত হয়েছিলেন। হামলার দায় স্বীকার করেছিল মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস। তবে মঙ্গলবারের হামলায় এখনও কেউ দায় স্বীকার করেনি।

নানগারহার প্রদেশের গভর্নর আল-জাজিরাকে বলেন মঙ্গলবার দেশটির পূর্বাঞ্চলের জালালাবাদ শহরে এই হামলা হয়। পুলিশ চেকপয়েন্ট লক্ষ্য করেই হামলা চালানো হয়। কাবুলভিত্তিক সংবাদমাধ্যম টোলো নিউজ জানায়, নিহতদের মধ্যে আটজন বেসামরিক নাগরিক ছিলেন।

নানগারহারের রাজধানী জালালাবাদে প্রায়শই এমন হামলা হয়। সেখানে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস ও তালেবান উভয়েরই তৎপরতা রয়েছে। আফগান সেনারা দুই পক্ষের বিরুদ্ধেই লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। ২০১৪ সাল থেকে সেখানে অভিযান জোরদার করেছে তারা।

সর্বশেষ ১ জুলাই জালালাবাদে বোমা হামলায় ১৯ জন প্রাণ হারিয়েছিল। শিখদের লক্ষ্য করে চালানো আত্মঘাতী হামলার দায় স্বীকার করে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস (ইসলামিক স্টেট)।

ওই হামলায় নিহতদের মধ্যে ছিলেন আগামী নির্বাচনের প্রার্থী শিখ নেতা আভতার সিং খালসা। আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি একটি হাসপাতাল উদ্বোধনের জন্য নানগারহার প্রদেশের জালালাবাদ শহরে গিয়েছিলেন। সেখানে হাসপাতাল উদ্বোধনের ঘন্টাখানেক পরেই ওই আত্মঘাতী বোমা হামলাটি চালানো হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য