ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি বলেছেন, ইরানকে একঘরে করার জন্য ওয়াশিংটন নতুন করে যে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তার জন্য আমেরিকাকে চড়া মূল্য দিতে হবে। একইসঙ্গে তিনি বলেন, শত্রুর এসব ষড়যন্ত্রের মুখে ইরানি জাতি আরো বেশি মাত্রায় ঐক্যবদ্ধ এবং দৃঢ়চেতা হবে।

গতকাল (মঙ্গলবার) অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় একদল প্রবাসী ইরানিদের সমাবেশে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, “মার্কিনীরা দাবি করছেন যে তারা বিশ্ব থেকে ইরানকে বিচ্ছিন্ন করতে চান। কিন্তু তাদের এ উদ্দেশ্য কখনোই পূরণ হবে না।” তিনি বলেন, কেবল মার্কিনীরাই বিশ্বের একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী নন।

ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন, অতীতে আমেরিকা যখনই ইরানি জাতির বিরুদ্ধে কোনো ষড়যন্ত্র করেছে তখন হয়ত বিশ্বের একটি অংশ তার পাশে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু আধুনিক বিশ্বের প্রেক্ষাপটে সেই পরিবেশ ও পরিস্থিতি পাল্টে গেছে এবং ইরানের বিরুদ্ধে ওয়াশিংটনের শত্রুতামূলক নীতিকে এখন খুব কম দেশই সমর্থন করে।

২০১৫ সালে বহুপক্ষীয় পরমাণু সমঝোতা থেকে আমেরিকার বেরিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে রুহানি বলেন, কেবল হাতে-গোনা কয়েকটি দেশ ওয়াশিংটনের এই একতরফা সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিশ্বের বেশিরভাগ দেশ ইরানের পাশে রয়েছে।

রুহানি বলেন, “বর্তমান পরিস্থিতিতে তার দেশের সঙ্গে আমেরিকার সংঘাত চরম আকার ধারণ করেছে। ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন তৎপরতার জন্য ওয়াশিংটনকে চড়া মূল্য দিতে হবে। কারণ তেহরানের বিরুদ্ধে আমেরিকার অবস্থান অযৌক্তিক, অবৈধ এবং স্বেচ্ছাচারীতামূলক হওয়ার পাশাপাশি তা আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতি এবং জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবের বিরোধী হওয়ায় ইরানও ওয়াশিংটের সব ষড়যন্ত্র রুখে দিতে প্রয়োজনীয় সবকিছুই করবে।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য