কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে জাতীয় পার্টির অঙ্গ সংগঠন উপজেলা জাতীয় ছাত্র সমাজের ২ শতাধিক নেতা-কর্মী পদত্যাগ করেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। গত কয়েক দিনে উপজেলার সকল ইউনিয়নের আহ্বায়ক, যুগ্ম আহ্বায়ক, সদস্য সচিবসহ ২শ ৩৪জন নেতা-কর্মী জাতীয় ছাত্র সমাজের একটি নোটিশ প্যাডে তালিকা করে সকলের স্বাক্ষরসহ পদত্যাগ নোটিশটি উপজেলা জাতীয় পার্টির কাছে পৌছিয়ে দিয়েছেন পদত্যাগকারীরা।

জানা গেছে সাংগঠনিক জেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি ফারুক হোসেনের সাথে উপজেলা জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি শাওন আহম্মেদ লেবু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক, নাগেশ^রী সাংগঠনিক জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন হক রবির দীর্ঘদিন থেকে সাংগঠনিক কোন্দল চলে আসছিলো।

এক পর্যায়ে এ কোন্দল চরম আকার ধারণ করে এবং ফারুক হোসেন ছাত্র সমাজের ওই ৩জন নেতাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ স্ব-পদ থেকে বহিস্কার করার হুমকী প্রদান করেন। এতে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয় এবং ওই ৩ নেতা চরাও হয়ে ফারুক হোসেনকে লাঞ্ছিত করায় তাদেরকে উপজেলা কমিটি থেকে বহিস্কার করেন সাংগঠনিক জেলা কমিটি।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উপজেলার নাগেশ^রী পৌর শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদ রানা, নেওয়াশী ইউনিয়ন শাখার সদস্য সচিব ফরিদুল ইসলাম ফরিদ, ভিতরবন্দ ইউনিয়ন শাখার আহ্বায়ক-ইসরাউল খন্দকার, সদস্য সচিব ফজলুল করিম বাবু, কালীগঞ্জ ইউনিয়ন শাখার আহ্বায়ক খাইরুল আলম রুবেল, যুগ্ম আহ্বায়ক রেজাউর করিম, সদস্য সচিব আছর উদ্দিন, কচাকাটা ইউনিয়ন শাখার আহ্বায়ক-মাহামুদুল ইসলাম, বল্লভেরখাস ইউনিয়ন শাখার সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক শাহিন আলম, সদস্য সচিব-আনোয়ার হোসেন, কেদার ইউনিয়ন শাখার আহ্বায়ক রবিউল ইসলাম রাজু, যুগ্ম-আহ্বায়ক-আশরাফুল আলম, নুনখাওয়া ইউনিয়নের আহ্বায়ক শাকিল আহমেদসহ অন্যান্য ইউনিয়ন কমিটির নেতাদের নেতৃত্বে মোট ২শ ৩৪ জন নেতাকর্মী পদত্যাগ করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা শাখার বহিস্কৃত সভাপতি শাওন আহম্মেদ লেবু বলেন, আমাদের সাংগঠনিক গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সাংগঠনিক জেলা কমিটি আমাদেরকে বহিস্কার করার ক্ষমতা রাখে না। ষড়যন্ত্রমূলক আমাদেরকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে বহিস্কার করা হয়েছে। উপজেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক ও নাগেশ^রী পৌর মেয়র আব্দুর রহমান মিয়ার সাথে যোগাযোগ করতে একাধিকবার মোবাইলে ফোন করলে তিনি লাইন কেটে দেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য