অবশেষে মন্ত্রণালয়ের অনুমতি মিলেছে। সেন্সরের জন্য অনুমতি পেয়েছে দেশের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান অভিনীত কলকাতার প্রযোজনায় ছবি ‘ভাইজান এলো রে’।

ছবিটি এবারের ঈদে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মুক্তিও পেয়েছে। একই সময়ে সালমান খানের ‘রেস থ্রি’ ও জিতের ‘সুলতান : দ্য সেভিয়ার’ মুক্তি পেলেও শাকিব খানের ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি সেখানকার ৮০টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়ে জিতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে তুলনামূলক ভালো ব্যবসা করেছে বলে জানিয়েছেন এ ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কলকাতার এসকে মুভিজ।

তবে ঈদে বাংলাদেশেও ছবিটি মুক্তির প্রস্তুতি নেয়া হয়েছিল। কিন্তু ঢাকাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির স্বার্থে ঈদ কিংবা বিশেষ কোনো উৎসবে বিদেশি তথা ভারতীয় ছবি মুক্তি দেয়া যাবে না বলে আদালত এক প্রযোজকের দায়ের করা রিটের পরিপ্রেক্ষিতে আদেশ দেয়। সেই আদেশ অনুযায়ী ঈদে বাংলাদেশে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবি মুক্তির প্রক্রিয়াও বন্ধ হয়ে যায়। ঈদ শেষ। তাই ছবিটি নতুন করে মুক্তির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

এরইমধ্যে সাফটা চুক্তির আওতায় বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ছবিটি প্রদর্শনের জন্য অনুমতি দিয়েছে। এবার সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পেলেই মুক্তি দেয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে ছবিটির আমদানিকারক এন ইউ ট্রেডার্সের কর্ণধার ও প্রযোজক কামাল মোহাম্মদ কিবরিয়া লিপু বলেন, ‘মন্ত্রণালয় থেকে ছবিটি মুক্তিতে আর কোনো আপত্তি নেই। বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। চিঠিটি হাতে পাওয়ার পরই সেন্সর ছাড়পত্রের জন্য জমা দেব।’ ছাড়পত্র পেলে এখনই ছবিটি মুক্তি দেয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে আমদানিকারক বলেন, ‘এখন যেহেতু দেশের মানুষ বিশ্বকাপ নিয়ে মেতে আছে, তাই এর মধ্যে ছবিটি মুক্তি দেয়ার কোনো ইচ্ছা নেই। বিশ্বকাপের পরপরই ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে। যাতে বিশ্বকাপের আনন্দের রেশ কেটে না যায়।’

এ ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন কলকাতার শ্রাবন্তী ও পায়েল সরকার। ছবিটি প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, ‘আমি একজন অভিনয়শিল্পী। পরিবার-পরিজন সবার কাছ থেকে দূরে থেকে দেড় যুগ ধরে এই অভিনয়টাই করে যাওয়ার চেষ্টা করছি। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এখন আন্তর্জাতিকভাবেও দেশকে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

ভাইজান এলো রে ছবিটি কলকাতার প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে। শুনেছি পশ্চিমবঙ্গে ছবিটি ভালো গিয়েছে। আশা করছি বাংলাদেশেও সুপারহিট হবে।

সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, আমি দর্শকদের খালি হাতে ফিরিয়ে দেইনি। তারা আমাকে ভালোবাসেন। তাই তাদের জন্যই আমার এত পরিশ্রম।’ এতে আরও অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের শাহেদ আলী, দীপা খন্দকার, মনিরা মিঠু এবং ভারতের রজতাভ দত্ত, সুপ্রিয় দত্ত প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য