কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বিয়ের দাবীতে ৫দিন ধরে এক প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়ীতে অনশন করছে। এরপরও ওই প্রেমিক ও তার অভিভাবক মেয়েটিকে বধু হিসেবে মেনে নেয়নি। জানা গেছে, উপজেলার রাজারহাট ইউনিয়নের হাড়িডাঙ্গা দূর্গারাম গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের কন্যা জান্নাতি বেগম(১৬) ও পার্শ¦বতী গোর্বরধন গ্রামের হাজরুদ্দির পুত্র পঁচা মিয়া( ২৪) দীর্ঘদিন ধরে চুটিয়ে প্রেম করে আসছিল। এমনকি প্রেমিক পঁচামিয়া বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তার প্রেমিকার সাথে দৈহিক মেলামেশা মিলিত হয়। ঘটনার দিন গত ২এপ্রিল রাতে দুজনে প্রেমের ইতি টানতে অজানার  উদ্যেশে পাড়ি দেয়। কিন্তু বিধিবাম হওয়ায় কিছুদুর যাওয়ার পর লোকজন তাদের দেখতে পায়। পরে  প্রেমিক পচাঁ তার প্রেমিকাকে নিয়ে লোকজনের ভয়ে তার বাড়ীতে আসে। কিন্তু বিষয়টি পঁচার অভিভাবকরা মানতে রাজি না হওয়ায় পঁচাকে অন্যত্র সরিয়ে রাখে। ঘটনাটি জানতে পেরে প্রেমিক পঁচার বাড়ীতে অবস্থান করে প্রেমিকা জান্নাতি বিয়ের দাবীতে অনশন শুরু করে। বিষয়টি নিয়ে দফায় দফায় শালিসী হলেও কোন সুরাহা হয়নি। গত ৫দিন ধরে সে ওই বাড়ীতে অনশত রয়েছে। প্রেমিকা জান্নাতি জানান, পঁচার সাথে তার বিয়ে না হলে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেবে। এলাকাবাসীরা অনাথ ওই কিশোরীটির পাশে আইনী সহায়তার জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বার ও মানবাধিকার সংস্থার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। ৬এপ্রিল এ ব্যাপারে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম হাসান সরদার জানান, এ ব্যাপারে কেউ থানায় কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য