অবশেষে কোরীয় উপদ্বীপে দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার যৌথ সামরিক মহড়া বন্ধের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলো মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতর-পেন্টাগন। শুক্রবার পেন্টাগনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, অনির্দিষ্টকালের জন্য দুটি প্রশিক্ষণ বিনিয়ম কর্মসূচি স্থগিত করার ব্যাপারে একমত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া। উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক বৈঠকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেওয়া প্রতিশ্রুতির প্রেক্ষাপটে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স পেন্টাগন সূত্রকে উদ্ধৃত করে মহড়া স্থগিতের ঘোষণার খবর নিশ্চিত করেছে।

গত ১২ জুন (মঙ্গলবার) সিঙ্গাপুরে উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক এক বৈঠকের পর দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা চুক্তি সম্পন্ন হয়। সেই চুক্তির বিষয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে কোরীয় উপদ্বীপে ‘উষ্কানিমূলক যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা’ বন্ধের ঘোষণা দিয়ে চমক দেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, মার্কিন সেনাদের দেশে ফিরিয়ে নিতে চান তিনি। আগে এই সামরিক মহড়া সমর্থন করলেও ট্রাম্প এখন সেদিন একে ‘উষ্কানিকমূলক’ আখ্যা দেন।

দক্ষিণ কোরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৩০ হাজার সেনা রয়েছে। প্রতি বছর তাদের পরিবর্তন করা হয়ে। প্রশান্ত মহাসাগরের গুয়াম ঘাঁটি থেকে তারা বড় ধরনের সামরিক মহড়া চালায়। উত্তর কোরিয়া এই বার্ষিক মহড়াকে আগ্রাসনের প্রস্তুতি বলে বিবেচনা করে। আর দক্ষিণ কোরিয়ার দাবি এটা তাদের আত্মরক্ষামূলক কার্যক্রম। ট্রাম্প সিঙ্গাপুর বৈঠকের পরের সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এই মহড়া বন্ধ করলে ‘অনেক টাকা বাঁচবে’। সেই ধারাবাহিকতায় পেন্টাগনের মুখপাত্র ডানা হোয়াইট শুক্রবার আসন্ন দুইটি মহড়া স্থগিতের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, সিঙ্গাপুর সম্মেলনের ফলাফল বাস্তবায়নে সহায়তা করতে এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সহযোগিতার জন্য প্রতিরক্ষামন্ত্রী ম্যাটিস অনির্দিষ্টভাবে এই মহড়া স্থগিত করেছেন। হোয়াইট আরও বলেন, আগামী তিন মাসের মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে অনুষ্ঠিতব্য ‘ফ্রিডম গার্ডিয়ান’সহ দুটি কোরিয়ান নৌজাহাজ বিনিমিয় কর্মসূচিও স্থগিত করেছেন ম্যাটিস।

গত বছর সাড়ে ১৭ হাজার মার্কিন সেনা ও ৫০ হাজারের বেশি দক্ষিণ কোরীয় সেনা ওই ফ্রিডম গার্ডিয়ান মহড়ায় অংশ নিয়েছিল। তবে মহড়াটিতে মাঠ পর্যায়ে অনুশীলনের পরিবর্তে মূলত কম্পিউটারভিত্তিক সমন্বয়ের দিকেই বেশি জোর দেওয়া হয়ে থাকে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন মার্কিন কর্মকর্তা কোরীয় নৌজাহাজ বিনিময় কর্মসূচি স্থগিত করার গুরুত্ব সম্পর্কে বলে যে, এগুলো তুলনামূলক ছোট মহড়া। প্রতি বসন্তে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া ‘ফোয়াল ঈগল’ ও ‘ম্যাক্স থান্ডার’ মহড়া চালিয়ে থাকে। এবছর মে মাসেই মহড়া দুটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবার দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক মহড়া স্থগিতের সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র, সামরিক কর্মকর্তা ও আইন প্রণেতাদের বিস্মিত করেছে। এসব মহড়ার মাধ্যমে বিশ্বের সবচেয়ে স্পর্শকাতর উত্তেজিত এলাকা নিয়ে মার্কিন সেনাদের প্রস্তুতি বিষয়টি নিশ্চিত করতে সহায়তা করে থাকে।

শুক্রবার ডানা হোয়াইট বলেন, মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জিম ম্যাটিস পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনের সঙ্গে শুক্রবার সাক্ষাত করেছেন। তিনি বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেওর নেতৃত্বে আসন্ন কূটনীতিক আলোচনায় বিশ্বাসযোগ্য গঠনমূলক সংলাপ চালিয়ে যাওয়াসহ অন্যান্য সিদ্ধান্ত উত্তর কোরিয়ার ওপর নির্ভর করছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য