নীলফামারীর ডোমারে মাদক ব্যবসায়ী সাহিদা বেগম রুপার (৩৮) বাড়ীতে হামলা, ভাংচুর ও আগুন দিয়েছে বিক্ষুদ্ধ জনতা। আগুনে পুড়ে যায় বাড়ীটি। গতকাল বুধবার রাত ১১টার দিকে পৌর শহরের ৪নং ওয়ার্ড কাজীপাড়ায় ঘটনাটি ঘটে। মাদক বিরোধী অভিযানের পর থেকেই পলাতক রয়েছে রুপা, আর তার স্বামী মাদক ব্যবসায়ী মিজানুর রয়েছে জেলহাজতে।

স্থানীয়রা জানান,কাজীপাড়ায় দুই সন্তান নিয়ে বাস করেন রুপা ও মিজানুর। মিজানুরের সাথে বিয়ের পরেই জরিয়ে পরেন মাদক ব্যবসায়। মাদকের ব্যবসা করেই বনে গেছেন অনেক টাকার মালিক।মিজানুর আগে থেকেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল।

পুলিশ জানায় রুপার বিরুদ্ধে ১৫টি এবং তার স্বামী মিজানুরের নামে রয়েছে ১৩টি মামলা।দুইজনেই একাধিকবার মাদকসহ আটক হলেও জামিনে বেরিয়ে এসে আবার জরিয়ে পরেন মাদক ব্যবসায়।

গত কিছুদিন থেকে সারাদেশে মাদক বিরোধী অভিযান শুরু হলে আত্মগোপনে চলে যায় রুপা বেগম। পুলিশ হন্য হয়ে খুজলেও তার সন্ধান মেলেনি।স্থানীয়রা জানায়, রুপা ও তার স্বামী ডোমার উপজেলার অনেক মানুষের জীবন নষ্ট করে দিয়েছে। তাদের কারনেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ডোমারের যুব সমাজ। তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির প্রয়োজন।

ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোকছেদ আলী রুপার বাড়েিত বিক্ষুদ্ধ জনতার আগুন দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হওয়ায় আত্মগোপনে চলে যায় রুপা।তাকে ধরতে এখনো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।যে ঘটনা ঘটেছে সেটা মানুষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ।

পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন বলেন,মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছে মানুষ। সমাজ থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করতে তাদের বিরুদ্ধে জনতা এক হয়েছে। এর আগে সৈয়দপুরেও দুই মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ী ভাংচুর করেছে বিক্ষুদ্ধ জনতা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য