কলম্বিয়ার দক্ষিণাঞ্চলে গালেরাস আগ্নেয়গিরিতে দু’টি মাঝারি ধরনের ভূমিকম্পে অন্তত দুইজন প্রাণ হারিয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ও রাস্তা । মঙ্গলবার এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা সিনহুয়া।

খবরে বলা হয়, মঙ্গলবার নারিনো প্রদেশের রাজধানী পাস্ত নগরীর কাছে পরপর দু’টি ভূমিকম্প হয়। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ভূমিকম্পের পর অঞ্চলটিতে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে।

নারিনোর গভর্নর কামিলো রোমেরো টুইটারে বলেন, জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা সব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

একটি বাড়িতে পাথর চাপা পড়ে দু’জন মারা গেছে। পাথরের চাপায় বাড়িটি ধ্বংস হয়ে যায়।

কলম্বিয়ার ভূতাত্ত্বিক সংস্থা জানায়, প্রথম ভূমিকম্পটি স্থানীয় সময় ভোর ৪টা ৩৫ মিনিটে ঘটে। রিখটার স্কেলে এর তীব্রতা ছিল ৪.৫।

এর উৎপত্তিস্থল ছিল মাত্র ৩০ কিলোমিটার গভীরে। ভূমিকম্পের ফলে আশপাশের এলাকাগুলোতে শক্তিশালী কাঁপুনি অনুভূত হয়েছে।

এক মিনিট পর ৪.৩ মাত্রার দ্বিতীয় ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। এর উৎপত্তিস্থলও ছিল ৩০ কিলোমিটার গভীরে। এরপর বেশ কয়েকটি ভূমিকম্প-পরবর্তী কম্পন হয়েছে। ভূমিকম্পের পর স্থানীয় স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গালেরাস কলম্বিয়ার সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরি। ২০১০ সালের জানুয়ারি এই আগ্নেয়গিরি অগ্ন্যুৎপাতে প্রায় ৮ হাজার লোককে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছিল। বাসস।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য