গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সামান্যতম জমির লোভে দিনমজুর একটি পরিবারের ৩ মহিলাকে বিষ প্রয়োগে হত্যার চেষ্টা ঘটনার ২৫ দিন পর গত শনিবার দিবাগত রাতে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত শিল্পী খাতুন মারা গেছে। অপর দুই মহিলা এখনো পুরোপুরি সুস্থ্য হয়নি। এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের, পুলিশ ৩ আসামীকে আটক করেছে।

থানার মামলা সূত্রে জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার অনন্তপুর গ্রামের ছামিনা বেওয়া ও তার ভাগিনী খোদেজা বেওয়া প্রতিবেশীদের জমি , বাড়িতে কাজ কর্ম করে কোন রকমে জীবিকা নির্বাহ করতো। খোদেজা বেওয়ার মেয়ে শিল্পী বেগম গোবিন্দগঞ্জের একটি ক্লিনিকে চাকরী করে লোখাপড়ার খরচ যোগাত। তাদের ৮ শতক জমি বাড়ীর ভিঠাই ছিল সম্পাদ।

ওই ৮ শতক বাড়ীর ভিঠার লোভে তাদের নিকট আতœীয় বকচর গ্রামের খোকা মিয়া অজ্ঞাত ৫/৭ জনের একটি একটি চক্র দীর্ঘদিন থেকে ষড়যন্ত্র করে আসছিল। এরই এক পর্যায়ে গত ১৩ মে রোববার সন্ধ্যার দিকে ছামিনা বেগমের বাড়ীতে বেড়াতে যায়। এ সময় বাড়ীর আঙ্গিনায় শিল্পী বেবগ ভাত রান্না করতে ছিল, সেই কারনে খোকা মিয়া চুলার নিকট বসে চুলায় খড়ি লাগিয়ে দেয় এবং তার সাথে আলাপ করে।

এক পর্যায়ে শিল্পী বেগম পানি আনতে গেলে খোকা মিয়া কাউকে কিছু না বলেই চলে যায়। এরপর বাড়ীর সকলে রান্না করা ভাত খাওয়ার পর ছামিনা বেওয়া পার্শের বাড়ীতে টিভি দেখার জন্য গেলে সেখানেই সে গুরুত্বর অসুস্থ্য হয়ে পরে। স্থানীয়রা ছামিনার মাথায় পানি ঢেলে তার বাড়ীতে নিয়ে গিয়ে দেখে খোতেজা বেওয়া ও তার মেয়ে শিল্পী খাতুনকেও অসুস্থ্য অবস্থায় অজ্ঞান হয়ে পরে থাকতে দেখতে পায়।

প্রতিবেশীরা তখন তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে একটি ক্লিনিকে ও পরে তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশংঙ্খা জনক অবস্থায় চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। সেখানে শিল্পী বেগমের অবস্থার অবনতি হলে আই সি ইউ তে নেয়া হয়।

এর পর গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যাবস্থা করলে ওই ৩ মহিলা সামান্য সুস্থ্য হলে বাড়ীতে ফিরে আসে। এর পর দীর্ঘ ২৫ দিন পর গত শনিবার দিবাগত রাতে শিল্পী খাতুন মারা যায়। গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমান পি পি এম জানান, এ ব্যাপারে শিল্পী খাতুনের মা বাদী হয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ ইতিমধ্যেই উপরে উল্লেখিত অভিযুক্ত ৩ জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে। আটককৃতরা হচ্ছে উপজেলার বকচর গ্রামের মৃত ফজল হক আকন্দের ছেলে খোকা মিয়া (৫৫) তার মেয়ে খুশি বেগম (২৫) ও জামাই অনন্তপুর গ্রামের তবিবুর রহমানের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (৩৫)।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য