পানামার পেপার্স কেলেঙ্কারির ঘটনায় অভিযুক্ত হওয়ায় গত বছর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে পদত্যাগে বাধ্য হন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং, কর ফাঁকি, জ্ঞাত-আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এসব অভিযোগের ঘটনায় বিচারিক কার্যক্রম এই সপ্তাহেই শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট জুলাইয়ের ১০ তারিখ পর্যন্ত বিচারের সময় বাড়িয়ে দেন। আর কিছুদিন পরই দেশটিতে সংসদ নির্বাচন হবে। এজন্য তারিখ নিয়ে আপত্তি তোলেন শরীফের আইনজীবীরা।

শরীফের প্রধান আইনজীবী খাজা হারিস সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, আমরা এই বিচার কাজে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কারণ শুনানির তারিখ অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বাড়ানোর জন্য করা আমাদের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

বছরের পর বছর ধরে বিভিন্ন গোষ্ঠী ও রাজনৈতিক দলের কারণে অস্থিতিশীল থাকা পাকিস্তানে বেসামরিক আধিপত্য প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে শক্তিশালী কন্ঠস্বর হিসেবে পরিচিত শরীফ। তার সঙ্গে দেশটির সেনাবাহিনী ও বিচারবিভাগের সম্পর্ক ভাল নয়। অনেক রাজনীতিক বিশ্লেষকই মনে করেন, দেশটির শক্তিশালী সামরিক বাহিনীই বিচারবিভাগকে দিয়ে নির্বাচনের আগ মুহুর্তে শরীফকে দোষী প্রমাণিত করতে চাইছে। যাতে আগামী নির্বাচনে তার দলের ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা কমে যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য