জেমস বন্ডের সঙ্গিনী হিসেবে রুপালি পর্দায় যাকে প্রথম দেখেছিলেন সবাই, সেই ইউনেস গেসন মারা গেছেন।

গত শতকের ষাটের দশকে জেমস বন্ড সিরিজের প্রথম চলচ্চিত্র ‘ড. নো’ তে সিলভিয়া ট্রেঞ্চের চরিত্র রূপায়ন করেছিলেন এই অভিনেত্রী।

‘ড. নো’ মুক্তি পাওয়ার পরের বছর ১৯৬৩ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ফ্রম রাশিয়া উইথ লাভ’ চলচ্চিত্রেও দেখা গিয়েছিল গেসনকে।

প্রথম জেমস বন্ড শ্যন কনোরি ৮৭ বছর বয়সে ২০১২ সালে মারা গিয়েছিলেন। ৯০ বছর বয়সে শুক্রবার গেসনের মৃত্যু ঘটে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

বন্ড সিরিজের প্রযোজক মাইকেল জে উইলসন ও বারবারা ব্রোকলি এক বিবৃতিতে তার মৃত্যু সংবাদ জানিয়ে শোক প্রকাশ করেছেন।

‘ড. নো’তে প্রধান ‘বন্ডগার্ল’ হিসেবে সবাই উরসুলা অ্যান্ড্রেসকে চিনলেও শ্যন কনোরির কণ্ঠে জেমস বন্ডের প্রথম নিজের পরিচয় দেওয়ার আলোচিত সংলাপটি এসেছিল সিলভিয়ার (গেসন) কথার প্রত্যুত্তরেই।

‘বন্ড, জেমস বন্ড’- ব্রিটিশ গোয়েন্দার নিজের পরিচয় মেলে ধরার এই সংলাপ বিশ্বজুড়ে বন্ডভক্তদের কাছে পরিচিত।

দুটি চলচ্চিত্রে গেসনকে পর্দায় বন্ডকন্যার ভূমিকায় দেখা গেলেও সেখানে তার কণ্ঠটি শোনেননি কেউ। অন্য একজনকে দিয়ে ডাব করানো হয়েছিল।

চলচ্চিত্রের পাশাপাশি দি সেইন্ট ও দি অ্যাভেঞ্জার্সের মতো টেলিভিশন সিরিজেও অভিনয় করে নাম কুড়িয়েছিলেন গেসন।

ব্রিটিশ অভিনেত্রী গেসনের জন্ম ১৯২৮ সালের ১৭ মার্চ, যুক্তরাজ্যের সারেতে।

গেসনের পর তার মেয়ে জেমস বন্ড সিরিজের ‘গোল্ডেন আই’য়ে অভিনয় করেছিলেন ১৯৯৫ সালে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য