প্রস্তাবিত বাজেটে রংপুর চেম্বার তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। রংপুর চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু জনকল্যাণমূলক ও বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাস্তববমূখী বলে মনে করলেও তিনি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন,সারাদেশে প্রদ্ধৃতি ও মাথাপিছু আয় বাড়লেও রংপুর অঞ্চলে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দারিদ্র্য।

এবারের প্রস্তাবিত বাজেটে রংপুর অঞ্চলের দারিদ্র নিরসনে টেকসই ও দৃশ্যমান কর্মপন্থা থাকা উচিত ছিল বলে রংপুর চেম্বার মনে করে। তাই বাজেটে অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া রংপুর বিভাগের ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্পায়নের জন্য তেমন কোন সুযোগ-সুবিধা ও অর্থ বরাদ্দের প্রস্তাব না থাকায় এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হবে বলে রংপুর চেম্বার আশংকা করছে।

এছাড়া বাজেটে অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া রংপুর অঞ্চলের দারিদ্র নিরসন ও ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য রংপুরে প্রস্তাবিত স্পেশাল ইকোনমিক জোন ও আইটি পার্ক দ্রুত স্থাপনসহ উত্তরাঞ্চলের উন্নয়নের স্বার্থে ‘‘নর্থ বেঙ্গল ডেভেলপমেন্ট মিনিস্ট্রি’’ গঠন ও ‘‘আলাদা বাজেট বরাদ্দ’’-এর বিষয়গুলো অর্ন্তভূক্ত থাকা উচিত ছিল বলে রংপুর চেম্বার মনে করে। তাই রংপুর অঞ্চলের দারিদ্র্য নিরসন ও ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য বৃহৎ শিল্প-কলকারখানা স্থাপনের লক্ষ্যে মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।

চেম্বার সভাপতি আরো বলেছেন, প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যক্তি শ্রেণীর করমুক্ত আয়সীমা না বাড়ানোয় করদাতারা নতুন করে মূল্যস্ফীতির বাড়তি চাপে পড়বে এবং বেশকিছু পণ্যের ওপর স্থানীয় পর্যায়ে ও আমদানিতে শুল্ক, সম্পূরক শুল্ক ও রেগুলেটরি ডিউটি বাড়ানোর প্রস্তাব করার ফলে পণ্য মূল্য অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে এবং সাধারণ জনগণের কষ্ট বাড়বে বলে রংপুর চেম্বার মনে করে। প্রস্তাবিত বাজেটে চাল আমদানির ওপর শুল্কারোপের প্রস্তাবটি একদিকে যেমন ইতিবাচক উদ্যোগ, তেমনি খানিকটা স্পর্শকাতরও।

তাই কৃষকের স্বার্থ রক্ষার পাশাপাশি চালের দাম যেন সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে সে বিষয়টির দিকে সরকারের নজর রাখা উচিত বলে রংপুর চেম্বার মনে করে। এছাড়া বাজেটে ইন্টারনেট বা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে পণ্য বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় এবং তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর সেবার ওপর ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করায় উদীয়মান এ শিল্পখাতটি মুখ থুবড়ে পড়বে বলে রংপুর চেম্বার মনে করে। তাই আমরা বর্ধিত আবগারী শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য