দিনাজপুর সংবাদাতাঃ মহিলা বহুমুখী শিক্ষা কেন্দ্র (এমবিএসকে) এর উদ্যোগে পিকেএসএফ এর সহযোগীতায় ৮নং শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদ, সদর, দিনাজপুরে “প্রবীন জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচীর” আওতায় ৭৫ জন প্রবীনকে বয়স্ক ভাতা প্রদান, বিশেষ সহায়তা প্রদান-২৬ জনকে ছড়ি, ২০ জনকে ছাতা, ১৭ জনকে কোমড; শ্রেষ্ঠ প্রবীন সম্মাননা পুরষ্কার ১১ জন এবং ৫ জনকে শ্রেষ্ঠ সন্তান সম্মাননা পুরষ্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি), মোঃ জয়নুল আবেদীন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ ইসহাক আলী চৌধুরী, চেয়ারম্যান, ৮নং শংকরপুর ইউনিয়ন, সদর, দিনাজপুর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, এমবিএসকে’র নির্বাহী প্রধান, মোসাঃ সুলতানা রাজিয়া খাতুন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, প্রবীণদের প্রতি আমাদের যথেষ্ঠ শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত। তিনি আরও বলেন যে, প্রবীন পিতা মাতার প্রতি সন্তানেরা যাতে যথাযথভাবে দায়িত্ব-কতর্ব্য পালন করে সে দিকে নজর রাখতে হবে।

তিনি আরও বলেন প্রবীণরা যাতে কোন নির্যাতনের শিকার না হয় তার জন্য আইনের শাসন এর সু-ব্যবস্থা রয়েছে। তিনি প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন এর কার্যক্রম এমবিএসকের বাস্তবায়ন করছে সে জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি তার বক্তব্য বলেন যে, আমার আওতাধীন কর্ম এলাকায় প্রবীণদের এ ধরনের কার্যক্রম পরিচালনের জন্য মহিলা বহুমুখী শিক্ষা কেন্দ্র (এমবিএসকে) কে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

তিনি আরও বলেন যে, প্রবীণ সামাজিক কেন্দ্র নির্মাণের জন্য জমির প্রয়োজন মর্মে জমির ব্যবস্থা করার জন্য যাবতীয় সহযোগিতা করবেন। অনুষ্ঠানে সভাপতি ও এমবিএসকের নির্বাহী প্রধান মোসাঃ সুলতনা রাজিয়া খাতুন অনুষ্ঠানের সমাপনি বক্তব্যে বলেন যে, প্রবীণরা যাতে বিদ্যাশ্রমে না যায় তার জন্য সকলকে সজাগ হওয়া উচিত। তিনি আরও বলেন, প্রবীণদের জন্য বিদ্যাশ্রম নয় তাদের স্থান পরিবারের।

ইহা ছাড়াও প্রবীণরা যাতে অবহেলিত না হয় তার জন্য প্রবীণ সামাজিক কমিটি গঠন করা হয়। তিনি এমবিএসকের প্রবীণ কার্যক্রমের প্রেক্ষাপট সভায় তুলে ধরেন। সভাপতির বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি কর্তৃক প্রবীণদের মাঝে প্রবীণ বয়স্কভাতা, বয়োজ্যষ্ঠ প্রবীণ সম্মাননা, শ্রেষ্ঠ সন্তান সম্মাননা প্রদানের সুচনা করেন দিয়ে পরবর্তীতে, বিশেষ অতিথি ও সভাপতি কর্তৃক উক্ত প্রবীণদের মাঝে প্রবীণ বয়স্কভাতা, বয়োজ্যষ্ঠ প্রবীণ সম্মাননা, শ্রেষ্ঠ সন্তান সম্মাননা প্রদানের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য