কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী মুকুল মিয়া (৩২) কে কুড়িগ্রাম দায়রা জজ আদালতে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও বিশ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে ৬ মাসের জেল প্রদান করে।

সোমবার দুপুরে কুড়িগ্রাম জেলা জজ আদালতের বিচারক আখতার-উল-আলমের আদালত এই রায় দেন। আসামী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এড. মুহাম্মদ ফকরুল আলম এবং রাস্ট্রপক্ষে ছিলেন পাবলিক প্রসিকিউটর এড. এসএম আব্রাহাম লিংকন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের অক্টোবর মাসে নাগেশ্বরীর মেছনীর পাড়া গ্রামের আবুল কাশেমের প্রথম কন্যা তানিয়া আক্তার তানি (২২) এর সাথে পাশ্ববর্তী নীলুরখামার চুরুয়াটারী গ্রামের সোহরাওয়ার্দি মিয়ার দ্বিতীয় পূত্র মুকুল মিয়ার বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকেই তাদের সংসারে দাম্পত্য কলহ লেগেই ছিল। বিয়ের ৮ মাসের মধ্যে ২০১৪ সালের ২০ জুন ভোর ৬টার দিকে তানিয়া আক্তারের গলাকাটা লাশ মুকুল মিয়ার ঘরে পাওয়া যায়।

এনিয়ে মুকুল মিয়া, তার পিতা ও দুই ভাইসহ ৫ জনকে আসামী করে ২০ জুন ২০১৪ সালে মামলা দায়ের করা হয়। দীর্ঘ ৫ বছর মামলা চলার পর সোমবার দুপুরে মামলায় রায় ঘোষণা করেন কুড়িগ্রাম জেলা জজ আদালতের বিচারক আখতার-উল-আলম। মামলায় অপর অভিযুক্ত ৪ জনকে খালাস দেয়া হলেও মুল আসামী মুকুল মিয়াকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও বিশ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে ৬ মাসের জেল প্রদান করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য