কুড়িগ্রামে উলিপুর এন.এস আমিন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের অভ্যন্তরে ইশরাক আল সিয়াম নামের ৪র্থ শ্রেনীর এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার ঘটনায় অভিযুক্ত প্রভাষক ফজলুল হক মিন্টু কে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, উপজেলা সদরের উপকন্ঠে এন.এস আমিন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের ৪র্থ শ্রেনির আবাসিক ছাত্র সবুজপাড়া গ্রামের হাবিবুর রহমানের পূত্র ইশরাক আল সিয়ামের সাথে একই শ্রেণির ফাহি নামের এক সহপাঠির সাথে প্রায়ই কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হত। বিষয়টি সিয়াম ও তার মা স্কুলের পরিচালক পাঁচপীর ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক শামীম আক্তার আমিন এর নিকট অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে পরিচালক শামীম আক্তার আমিন নিরব ভুমিকা পালন করায় ৩১ মে ফাহির পিতা ফজলুল হক আকস্মিক ভাবে স্কুলে প্রবেশ করে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সামনেই সিয়ামকে বেধড়ক মারপিট করে। এ সময় অন্য শিক্ষার্থীরা ছুটে এসে আহত শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করলেও শিক্ষকরা নির্বিকার থাকে। পরে সিয়ামকে গুরুতর অসুস্থ্য অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলেও ঘটনা ধামাচাপা দিতে তার ভুয়া নাম ইসফল মাহমুদ ব্যবহার করা সহ প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে স্কুলের একটি কক্ষে আটকে রাখা হয়।

খবর পেয়ে তার মা ইশরাত জাহান ইরানী স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় গুরুতর আহত সিয়ামকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। নির্যাতনের ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়।

এঘটনায় আহত শিক্ষার্থীর মা থানায় মামলা করেন। বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালালেও পুলিশ গত রোববার গভীর রাতে কুড়িগ্রাম থেকে ফজলুল হক মিন্টু কে গ্রেপ্তার করে।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) আনোয়ারুল ইসলাম জানান, অভিযুক্ত ব্যক্তি ফজলুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, অন্যদের গ্রেপ্তারে জোর প্রচেষ্টা চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য