বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলংয়ের বেশকিছু এলাকায় বিক্ষুব্ধ জনতার জ্বালাও-পোড়াও, ভাংচুর ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের পর সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এ সহিংসতা থামাতে তৃতীয় দিনের মতো কারফিউ অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

থেম লিউ মাওলংয়ের একদল বাসিন্দা বৃহস্পতিবার বিকালে বাসের এক সহকারীকে মারধর করলে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটে। এতে তিন কিশোর আহত হয়।

উত্তেজনা থামাতে পুলিশ ব্যবস্থা নিলে পরে তাদের সঙ্গেও উন্মত্ত জনতার সংঘর্ষ বাধে।

বিক্ষুব্ধরা শুক্রবার রাতে একটি বাড়ি ও একটি দোকান পুড়িয়ে দেয়; কারফিউ অমান্য করে চলা রাতভর সংঘর্ষে ৫টি গাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়, আহত হন পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানান, সংঘর্ষের মধ্যেই অন্তত ৫০০ লোককে সেনানিবাসে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠকে সভাপতিত্ব করা মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড কে সাংমা সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার রাতেও বিক্ষিপ্ত কিছু সংঘর্ষ ও পাথর নিক্ষেপের খবর পাওয়া গেছে। বিক্ষুব্ধ জনতা এক জায়গায় পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারলেও কেউ আহত হয়নি। আগের দিনগুলোর তুলনায় পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শহরের বেশকিছু এলাকায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার পর পরিস্থিতি ঠাণ্ডা করতে শুক্রবার রাত ১০টা থেকে পরদিন ভোর ৫টা পর্যন্ত শিলংয়ে কারফিউ জারি করে কর্তৃপক্ষ।

একইদিন সেনাবাহিনী পতাকা বৈঠকও করে। গুজবের বিস্তৃতিরোধে ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মেঘালয়ের এ রাজধানীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য মোবাইল ইন্টারনেট ও এসএমএস সার্ভিস বন্ধ রাখা হয়েছে।

পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সান্ধ্য আইন বলবৎ থাকবে বলেও জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। সহিংসতার সঙ্গে জড়িতসন্দেহে ইতিমধ্যেই ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া সংঘর্ষ মোতফ্রান, মাওখারসহ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ার পর শুক্রবার ভোর চারটা থেকে লুমদিয়েনগ্জিরি থানা ও ক্যান্টনমেন্ট বিট হাউনের আওতাধীন এলাকাগুলোতে কারফিউ জারি করে।

বিক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীরা ওই কারফিউ অমান্য করেই পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় ও পাথর নিক্ষেপ করে।

আন্দোলনকারীদের দমাতে মাওখার ও মোতফ্রান এলাকার পুলিশ আন্দোলনকারীদের দিকে কাঁদানে গ্যাস ও ব্যবহৃত ক্যান ছুড়ে মারে।

তিনদিন ধরে চলা এ আন্দোলনে পুলিশ সদস্যসহ একাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে শিলংয়ের পুলিশ সুপার স্টিফেন রিনজাহও আছেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

মাথায় রডের আঘাত পাওয়া রিনজাহকে পরে শিলং সিভিল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে উর্ধ্বতন এক পুলিশ কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য