মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁওঃ নতুন ও পুরাতন রাস্তা দখল করে চলছে ধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কাজ। ফলে যান চলাচল ও পথচারিদের চরম দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে। অনেকেই আবার রাস্তাগুলোকে ধান শুকানোর চাতাল হিসেবে ব্যবহার করছেন। জেলা সদরসহ উপজেলার বিভিন্ন সড়কে ধান, খড় শুকানো ও মাড়াইয়ের কারণে চলাচলে মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এতে প্রতিনিয়ত সড়কগুলোতে ছোট-বড় দুঘর্টনা ঘটছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে জেলার বিভিন্ন রাস্তায় দেখা যায় প্রায় একই অবস্থা , ঠাকুরগাঁও রোড় থেকে ভাওলার হাট দিয়ে নেকমরদ গামী রাস্তার দুই পাশ জুরে বিশাল মাঠ তাই এই রাস্তা দিয়ে লোকজন তেমন ভাবে যাতায়াত করছে না বল্লেই চলে। ঠাকুরগাঁও শহর দিয়ে রুহিয়া গামী রাস্তায় একই অবস্থা। নেকমরদ কলেজের পেছনের দিক দিয়ে ভকদগাজীর রাস্তাটিতো একেবারেই বন্ধ করে ধান/ভুট্টা মারাই চলছে। রাস্তা গুলোয় দখল যারা যেমন ধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কাজ করছেন।

দুর বিল ও মাঠ থেকে ধান কেটে কৃষকরা বাড়িতে না যেয়ে পাকা রাস্তাগুলো দখল করে মাড়াইয়ের কাজ করছেন। আর ধান মাড়াই সেলো মেশিন ব্যবহারের ফলে নতুন নির্মিত রাস্তাগুলোর পাথর সড়ে গিয়ে ক্ষতের সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে এসব নতুন নির্মিত রাস্তাগুলো অল্প সময়ের মধ্যেই নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এছাড়াও যানচলাচলসহ পথচারিদরে চরম দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে। রাস্তা দখল করে ধান মাড়াইয়ের ফলে জায়গা সংকটে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। এতে ছোট বড় দুর্ঘটনাও ঘটছে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

জেলার শিবগঞ্জ বাজারের ভ্যানচালক আজিজুর রহমান জানান, একদিকে রাস্তাগুলোর বেহালদশা তারপর আবার চলছে ধান মাড়াই ও খড়শুকানোর কাজ। ফলে ভ্যানগাড়িতে যাত্রী নিয়ে প্রতিনিয়তই ঝুকি নিয়ে রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে।

জেলার বিশ্বাসপুর গ্রামের হেলাল, ইমরান উরফে- কদম আলী। সীমা আক্তার, গ্রামের রিমা বেগম, পারভেজ ও সোহেল জানান, রাস্তায় ধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কথা স্বীকার করে বলেন, আলাদা কোনো জায়গা না থাকায় রাস্তায় ধান মাড়াইয়ের কাজ করতে হচ্ছে। এতে সাময়িক যানবাহন পথচারিদের চলাফেরা করতে অসুবিধা হচ্ছে বলেও তারা জানান।

সদর উপজেলার জামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান জানান, মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব। সবাই বুঝতে হবে যানবাহন ও পথচাদিরে চলাফেরা করার জন্য রাস্তা। এখানে রাস্তা দখল করে ধান মাড়াই ও খড় শুকানো বেআইনি। বর্তমানে প্রায় সব জায়গা এমন দৃশ্য চোখে পড়ে। ফলে রাস্তায় চলাফেরায় চরম দুভোর্গ পোহাতে হচ্ছে।

জানতে চাইলে ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল লতিব মিঞ্জা জানান, প্রতিবছরই এই সময় বিভিন্ন এলাকার লোকজন রাস্তায় ধানের কাজ করেন। ফলে রাস্তায় চলাফেরা করতে চরম অসুবিধা হয়। মানবিক কারণে অনেক সময় কিছুই বলা যায় না। তবে গ্রামপুলিশদের সহায়তায় লোকজনকে সচেতন করার উদ্যোগ নেবেন বলে জানান ওসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য