পাকিস্তানি অভিনেত্রী ইরতিজা রুবার মীরা বিবাহিত ছিলেন সেটি ৯ বছর পর প্রমাণিত হয়েছে।

নিজের স্ত্রী দাবি করে ৯ বছর আগে মামলা করেছিলেন দেশটির লাহোর শহরের ব্যবসায়ী আতিকুর রহমান। কিন্তু মীরা তা অস্বীকার করেন। খবর দ্য ডন।

অবশেষে লাহোর আদালত রায় দিয়েছেন আতিকুর রহমানের সঙ্গেই মীরার বিয়ে হয়েছিল এবং আতিকুর রহমান তার ও মীরার যে নিকাহনামা দেখিয়েছেন তা বৈধ। মীরা তার বিরুদ্ধে নিকাহনামা জালিয়াতির যে অভিযোগ এনেছিলেন তাও খারিজ করে দেন আদালত।

তাদের বিয়ের নিবন্ধন করেছিলেন আহমেদ আলি সাজিদ নামে যে কাজী তার সাক্ষ্যের ভিত্তিতে আদালত এ রায় দেন।

রায়ে জানা যায়, অভিনেত্রী মীরা এখনও আইনগতভাবে আতিকুর রহমানের স্ত্রী। ফলে ক্যাপ্টেন নাভিদের সঙ্গে মীরার যে বিয়ে হয়েছে তা আইনগতভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়ল। ক্যাপ্টেন নাভিদের সঙ্গে একটি ‘বিতর্কিত ভিডিও ক্লিপ’ প্রকাশের পর তাকে নিজের স্বামী বলে পরিচয় দেন মীরা।

আতিকুর রহমান মীরার বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন যে, মীরা তার সঙ্গে বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ থাকাবস্থায়ই ক্যাপ্টেন নাভিদকে বিয়ে করেছেন, যা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

তবে মীরা তার বিরুদ্ধে ২০০৯ সালে মামলা করেন। তিনি দাবি করেন, আতিকুর রহমান তাকে ভুয়া বিয়ের সার্টিফিকেট দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করেছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য