ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ধর্মশালায় বড় হওয়া এতিম এক লোক দেবী কালী সাজায় তাকে নিয়ে হাসিঠাট্টা করার পর ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে কয়েক ব্যক্তি।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ চার ব্যক্তি ও তিন কিশোরকে আটক করেছে বলে পুলিশের বরাতে মঙ্গলবার জানিয়েছে এনডিটিভি।

গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে দিল্লির ন্যাশনাল স্মল ইন্ডাষ্ট্রিজ কর্পোরেশনের (এনএসআইসি) জঙ্গল থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশের বুকে, ‍মুখে ও মাথায় ছুরির আঘাত ছিল।

পরে লাশটি কালু ওরফে কালুয়ার বলে শনাক্ত হয়। এতিম কালু কালকাজি মন্দিরের কাছে এক ধর্মশালায় বড় হয়েছে বলে পুলিশ জানায়। সে নাচতো ও হিজড়াদের সঙ্গে ঘুরে বেড়াতো।

‘মা কালীর’ ভক্ত কালু মঙ্গলবার ও শনিবার কালী সেজে থাকতো। যে রাতে সে খুন হয় সে সময়ও সে কালীর সাজে ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের পর এক তথ্যের ভিত্তিতে রোববার পুলিশ নগরীর গোবিন্দপুরি থেকে ওই অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে অভিযুক্তরা স্বীকার করে তারা কালুকে হত্যা করেছে।

স্বীকারোক্তিতে তারা বলেছে, মদ পান করে তারা এনএসআইসির জঙ্গলের প্রধান ফটকের কাছে অবস্থান করছিল, এ সময় তারা দেখতে পায় কালু সেখান দিয়ে যাচ্ছে। কালুর পোশাক দেখে তাকে নিয়ে উপহাস করতে শুরু করে তারা।

কালু প্রতিবাদ করলে তারা তাকে ধরে জঙ্গলের ভিতরে নিয়ে মারধর করে, এরই এক পর্যায়ে সঙ্গে থাকা সুইস নাইফ দিয়ে কালুকে ছুরিকাঘাত করে তারা।

আহত কালু এক পর্যায়ে মারা গেলে অভিযুক্তরা নিজেদের মোটরসাইকেলে করে পালিয়ে যায়।

অভিযুক্তদের পাঁচটি মোটরসাইকেলও জব্দ করেছে পুলিশ। অভিযুক্তদের মধ্যে নবীন নামে একজন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য