মোঃ লিহাজ উদ্দীন মানিক, বোদা (পঞ্চগড়) থেকেঃ পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার গুরুত্বপুর্ণ বোদা-পাচপীর কমরেড মোহাম্মদ ফরহাদ সড়কটির বেহাল দশা। পাকা রাস্তার কাপেটিং উঠে গিয়ে খানা খন্দে ভরে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শত শত যানবাহন চলাচল করছে।

পথচারী ও ভোক্তভোগীরা জানান, বোদা থেকে পাঁচপীর ১৫ কিঃমিঃ সড়কের মধ্যে ১০ কিঃমিঃ সড়ক চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের মানুষজনকে এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন নিয়মিত ভাবে চলাচল করতে হয়।

সেই সাথে পাশ্ববর্তী ঠাকুরগাও ও দিনাজপুর জেলার কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষকে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়। অত্র এলাকাবাসীরা এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে বেচা কেনাসহ প্রয়োজনীয় সকল প্রকার কাজে এ সড়ক দিয়ে যাতাযাত করে থাকেন।

তাছাড়া পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার চেংঠী হাজরাডাঙ্গা, সুন্দরদিঘী, দন্ডপাল ইউনিয়নের মানুষজনকে পঞ্চগড় জেলা শহরে আসতে একমাত্র এই রাস্তাটি ব্যবহৃত করতে দেখা যায়। এছাড়াও দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ি ইউনিয়ন, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বালিয়া, শুখানপুকুরী ও গড়েয়া ইউনিয়নের মানুষজন প্রতিদিন সিএনজি, ভটবটি, অটোরিক্সাসহ অনেক যানবাহন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়।

এ ব্যাপারে বলরামহাট ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের স্যতেন চন্দ্র শর্মা বলেন, আমাদের উপজেলার সাথে যোগাযোগের একমাত্র রাস্তা এটি। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি মেরামত না করায় আমাদের চলাচল খুবই কষ্টকর হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে রোগীদের জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতালে নিতে চাইলে এ দুর্ভোগের শেষ থাকে না।

বোদা-পাঁচপীর সড়কের সিএনজি এবং অটোরিক্সা চালক মছলেমউদ্দীন (নেন্দ), জাহাঙ্গীর ও নজরুল বলেন, সড়কটিতে খানাখন্দ থাকায় প্রতিনিয়ত ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। এ সড়কে যানবাহন চলতে এক দিকে যানবাহনের ক্ষতি আবার যাত্রীদের বিড়ম্বনা। অন্য দিকে জীবনের ঝুঁকি।

তারপরও আমরা পেটের দায়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এ সড়ক দিয়ে যানবাহন চালাই। এ বিষয়ে উপজেলা এলজিইডি অফিস সুত্রে জানা গেছে, এই পাকা সড়কটির সংস্কার কাজ হয়েছিল ৪ বছর আগে। সেই সময় উপজেলা প্রকৌশলী দায়িত্ব পালন করছিলেন আব্দুল মালেক মন্ডল।

এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেন উপজেলা প্রকৌশলী ঠিকাদারের সাথে যোগসাযোসে নি¤œমানের কাজ করেছেন। ফলে অল্প কয়েক বছরের মধ্যে রাস্তাটি সংস্কার কাজের এ অবস্থা হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুর রহিম আকন্দ বলেন, কয়েক মাস হল আমি এ উপজেলায় দায়িত্ব নিয়েছি।

সড়কটি সংস্কারের জন্য স্টেটম্যান্ট তৈরী করা হয়েছে। এই স্টেটম্যান্ট মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হবে। মন্ত্রনালয় থেকে পাশ হলে সংস্কার কাজ শুরু করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য