অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। মঙ্গলবার (২২ মে) আনুমানিক বিকাল ৪টা ৩৫ মিনিটে রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালে তিনি মারা যান। রিজেন্ট হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. হাসিব তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, আজ সকাল ১০টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হাসপাতালে ভর্তি করা হন ছোট পর্দার অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ ।

অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম জানান, মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হন। তাকে উত্তরা ১১ নম্বর সেক্টরের রিজেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাজিন আহমেদের এজমার সমস্যা ছিল। হার্টের কোনো সমস্যা ছিল এটা জানা ছিল না।

এদিকে তাজিন আহমেদের এই খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন অভিনেতা রিয়াজ, রওনক হাসান, নির্মাতা বদরুল আনাম সৌদ, সকাল আহমেদ, অভিনেত্রী জেনীসহ অনেকেই।

অভিনেতা রওনক হাসান জানান, মরদেহ সমাহিত করার বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত পরিবার থেকে নেওয়া হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর করে তাজিন আহমেদ ভোরের কাগজ, প্রথম আলোসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেছেন। আনন্দ ভুবন ম্যাগাজিনের কলামিস্টও ছিলেন তিনি। পরে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। মায়ের হাত ধরেই অভিনয়জগতে প্রবেশ করেন তাজিন।

‘নাট্যজন’ নাটকদলের হয়ে তিনি মঞ্চে কাজ করেছেন। ২০০০ সালে ‘আরণ্যক’ নাট্যদলে যোগ দিয়ে এখনো ‘আরণ্যক’-এর সঙ্গে যুক্ত আছেন। টিভিনাটকে অভিনয় করে পরবর্তীসময়ে দর্শকের কাছে প্রিয় হয়ে ওঠেন তাজিন আহমেদ। রেডিও এবং টেলিভিশনে উপস্থাপনাও করেছেন। লেখালেখিও করেন তিনি।

তাজিনের লেখা ও পরিচালনায় তৈরি হয় ‘যাতক’ ও ‘যোগফল’ নামে দুটি নাটক। তার লেখা উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হচ্ছে ‘বৃদ্ধাশ্রম’, ‘অনুর একদিন’, ‘এক আকাশের তারা’, ‘হুম’, ‘সম্পর্ক’ ইত্যাদি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য