লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

আজ রোববার বিকালে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় শিক্ষকরা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিদের্শ না মানার অভিযোগ তুলেছেন।

জানা গেছে, নব্য জাতীয়করণ প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর প্রধান শিক্ষকদের সহকারী শিক্ষক হিসাবে জাতীয়কারণ করা হয়। পরে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা তাদেরকে প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগের দাবীতে হাইকোর্টে একটি রিট করেন।

ফলে গত ২২ এপ্রিল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্ন সচিব বিজয় ভুষণ পাল এক পত্রে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর প্রধান শিক্ষক পদে পদায়ন না করার জন্য নিদের্শ দেন। পরে গত ১৫ মে অপর এক পত্রে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্ন সচিব শেখ জসিম উদ্দিন আহাম্মেদ গত ২২ এপ্রিল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্ন সচিব বিজয় ভুষণ পালের স্বাক্ষরিত পত্রটি বাতিল ঘোষনা করেন।

ফলে রোববার দুপুরে হাতীবান্ধায় প্রধান শিক্ষক হিসাবে পদায়নে অপেক্ষমান সহকারী শিক্ষকরা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদের দেখা করতে যায়।

খবর পেয়ে নব্য জাতীয়করণ প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর প্রধান শিক্ষকরা উপস্থিত হয়ে হট্টগোল সৃষ্টি করেন। এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

পদায়নে অপেক্ষমান সহকারী শিক্ষকরা জানান, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিদের্শ মানছে না। তবে নব্য জাতীয়করণ প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোর প্রধান শিক্ষকরা জানান, এ নিয়ে হাইকোর্ট যেহেতু রিট জারি করেছেন সেহেতু পদায়নের কোনো সুযোগ নেই।

হাতীবান্ধা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান,ওই পত্রটি অস্পষ্ট তাই পুরো নিদের্শের জন্য ইতোমধ্যে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে পত্র দেয়া হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য