২০০৬ সালে কুয়ালালামপুরে খুন হয়েছিলেন এক মঙ্গোলিয়ান মডেল। সেই খুনের তদন্ত পুনরায় শুরু হওয়ার সম্ভাবনা চিন্তা বাড়িয়েছে মালয়েশিয়ার সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের। মালয়েশিয়ার নতুন সরকারের কাছে ওই খুনের নতুন তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট। দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে নিজ বাড়িতে তল্লাশির পর এমনিতেই চাপের মুখে রয়েছেন সদ্য সাবেক মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক।

২০০৬ সালে মালয়েশিয়ায় খুন হন মঙ্গোলিয়ার মডেল আলতানতুইয়া সারিবু। ২০১৫ সালে ওই হত্যাকান্ডের রায়ে পলাতক দুই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের সাজা ঘোষণা করা হয়। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, এক সময়ে নাজিবের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এই দুই পুলিশ সদস্য মামলা চলাকালে জামিন নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় পালিয়ে যান। দু্ই পুলিশের মৃত্যুদণ্ড ঘোষিত হলেও খুনের নির্দেশ দাতার সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি।

মালয়েশিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদকে অভিনন্দন জানিয়ে লেখা চিঠিতে এই হত্যাকাণ্ড পুনঃতদন্তের আহ্বান জানিয়ে মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট বাত্তুলগা খাল্টামা বলেছেন নতুন করে তদন্ত হলে তাতে পূর্ণ সহযোগিতা দেবেন তিনি। ৯২ বছর বয়সী মাহাথিরকে পাঠানো চিঠিটিটি নিজের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে পোস্ট করেছেন মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট। ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, মঙ্গোলিয়ার প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি ২০০৬ সালে ১৮ অক্টোবর ঘটে যাওয়া একটি অপরাধের দিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে চাই। সেদিন মঙ্গোলিয়ার নাগরিক ও দুই সন্তানের মা আলতানতুইয়া সারিবু মালয়েশিয়ায় নিহত হন।

আলতানতুইয়া খুনের সময়ে মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন নাজিব রাজাক। তার আত্মীয় ও এক সময়ের ঘনিষ্ঠ আবদুল রাজাক বাগিন্দা ওই মডেলের প্রেমিক ছিল বলে ধারণা করা হয়। তার অনুবাদক ও পরামর্শক হিসেবে কাজ করতেন ওই মডেল। নাগরিক অধিকার গ্রুপগুলোর অভিযোগ ফরাসি জাহাজ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান ডিসিএনএসের কাছ থেকে ২০০২ সালে মালয়েশিয়ার জন্য দুটি সাবমেরিন ক্রয় চুক্তির সময়ে নাজিবের সহকারি আবদুল রাজাক বাগিন্দার অনুবাদক হিসেবে কাজে ভূমিকা রাখায় খুন হন আলতানতুইয়া। নাজিব আলতানতুইয়া চেনা বা ওই চুক্তির সময়ে ঘুষ নেওয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

নাজিবের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার জুড়েই এই খুনের রহস্য তার পিছু নিয়েছে। নতুন করে তদন্ত শুরুর বিষয়ে মন্তব্যের জন্য নাজিবে মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করেও সাড়া পায়নি রয়টার্স।প্রতিরক্ষা পরামর্শক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক বাগিন্দাকে এই মামলার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে আটক হলেও ২০০৮ সালে খালাস পান।

এই মামলায় মৃত্যুদণ্ড ঘোষণার আগে অস্ট্রেলিয়ায় পালিয়ে যাওয়া দুই পুলিশ সদস্যের একজন সিরুল আজহগার ওমর। ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে ২০১৫ সাল থেকে একটি অভিবাসন কেন্দ্রে আটক রয়েছেন তিনি। সেখান থেকে নিউজ পোর্টাল মালয়সিয়াকিনিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন নতুন সরকার এই মামলা পুনরিজ্জীবিত করতে যেকোনও পদক্ষেপ নিলে তাতে সহায়তা করবেন তিনি। এতে তিনি মুক্তভাবে হাটার সুযোগ পাবেন বলে বিশ্বাস করেন বলেও জানান। সংবাদমাধ্যমটিকে তিনি বলেন, আমি নতুন সরকারকে সহায়তা করে সত্যিই যা ঘটেছে তা প্রকাশ করতে চাই। আর তাহলে সরকার আমাকে পুরো ক্ষমা করে দেবে।

সিরুলের মৃত্যুদণ্ড পুনর্বিবেচনা করা হবে কিনা তা নিয়ে সম্প্রতি সোমবার মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, আমরা একসাথে সবকিছুই করতে পারবো না। তবে মাহাথিরের জোটসঙ্গী সদ্য কারামুক্ত আনোয়ার ইব্রাহীম বলেছেন, ওই হত্যাকাণ্ডের মূল প্রত্যক্ষদর্শীকে বিচারকের বাধা দেওয়া এই বিচার কার্যক্রমকে আইনি উপহাসে পরিণত করেছে। রাজকীয় ক্ষমায় নিজের কারামুক্তির পর অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যমকে এই মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, সবচেয়ে ভালো উপায় হবে নতুন অভিযোগ এনে পূর্নাঙ্গ শুনানির করা।

মালয়সিয়াকিনিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সিরুল নতুন বিচারের আহ্বান জানানোয় আনোয়ারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

মালয়েশিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের প্রশাসন এরই মধ্যে নাজিব রাজাকের দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। নতুন প্রশাসন এরই মধ্যে নাজিবের প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্রায়ত্ব একটি তহবিল থেকে কয়েক বিলিয়ন ডলার তছরুপের অভিযোগ খতিয়ে দেখা শুরু করেছে। দেশটির দুর্নীতি বিরোধি সংস্থা এর মধ্যেই নাজিবকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তবে বরাবরই সেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য