মো: জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০ মে রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ক্যারেজ সপের এই অগ্নিকান্ডে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে কর্মরত কর্মচারীরা। এ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও পুরো কারখানায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

জানা যায়, ওই সপে একটি পাওয়ার কারের সংস্কার কাজ চলছিল। ওয়েল্ডিং করার সময় হঠাৎ আগুন ধরে যায়। প্রাথমিকভাবে সপের রক্ষিত অগ্নিনির্বাপক গ্যাস দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করা হলেও তা ব্যর্থ হওয়ায় দ্রুত আগুন ও ধোয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে পুরো সপ।

কারখানার ভিতরে আশেপাশে কোন পানির উৎস্য তথা ওয়াটার হাউস বা ডোবা না থাকায় আগুন নেভাতে চরম হিমশিমে পড়ে কর্মচারীরা। মুহুর্তে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে কারখানা জুড়ে।

অবস্থা বেগতিক দেখে সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনে খবর দিলে দমকল বাহিনীর একটি ইউনিট দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। কিন্তু কারখানার প্রধান ফটকে অগ্নিকান্ডের বিষয়ে কোন তথ্য না থাকায় তারা ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি প্রবেশে বাধা দেয়। ফলে প্রায় ১৫ মিনিট বিলম্ব হয়। এতে আগুন আরও ছড়িয়ে পড়ে এবং ভয়াবহ আকার ধারণ করে। পরে ফায়ার সার্ভিস ক্যারেজ সপে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

ফায়ার সার্ভিস সিনিয়র ষ্টেশন অফিসার মাহমুদুল হাসান খোকন জানান, রেলওয়ে কারখানা থেকে অগ্নিকান্ডের খরব পেয়ে আমরা দ্রুত সেখানে যাই। প্রথমেই প্রধান ফটকে বাধা প্রাপ্ত হওয়ায় ঘটনাস্থলে পৌছতে বিলম্ব হয়। আমাদের ট্যাংকের পানি শেষ হয়ে যাওয়ায় এবং কারখানার ভিতরে কোনরকম পানির উৎস্য না থাকায় প্রয়োজনীয় পানির অভাবে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে চরম বেগ পেতে হয়। দেশের অন্যতম বৃহৎ এ কারখানায় আগুন নির্বাপনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না থাকা অকল্পনীয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই সপের কয়েকজন কর্মচারী জানান, পাওয়ার কারে জ¦ালানী তেলের প্রলেপ থাকায় ওয়েল্ডিংয়ের স্পার্কে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তাৎক্ষনিক অগ্নি নির্বাপক গ্যাস স্প্রে না করলে হয়তো পুরো পাওয়ার কার সহ পার্শে থাকা কয়েকটি বগিতেও আগুন ছড়িয়ে পড়ার আশংকা ছিল।

ক্যারেজ সপের ইনচার্জ দিলশাদ করিম আবু হেনার কাছে অগ্নিকান্ড থেকে প্রতিরক্ষার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করবনা। ডিএস স্যারের সাথে কথা বলেন।

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর কারখানা বিভাগীয় তত্বাবধায়ক (ডিএস) কুদরত-ই-খোদার কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য