বিরোধপূর্ণ দক্ষিণ চীন সাগরে অবস্থিত দ্বীপে সামরিক মহড়ার অংশ হিসেবে বোমারু বিমান মোতায়েন করেছে বেইজিং। শনিবার চীনের দেওয়া এক বিবৃতির বরাত দিয়ে একথা জানায় ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‌‘পিপলস লিবারেশন আর্মি এইচ-৬কে এর কয়েকটি বোমারু বিমান মহড়ার জন্য দ্বীপে অবতরণ করেছে। এতে করে এই অঞ্চলে আমাদের শক্তিমত্তার উন্নয়ন ঘটবে এবং যেকোনো সময় হামলা ও প্রতিহত করতে সক্ষম হবো আমরা।’

সাগরের এই জলসীমার মালিকানা নিয়ে কয়েকটি দেশের বিরোধ চলছে। অনেকদিন ধরেই এই অঞ্চলে কৃত্রিম দ্বীপ তৈরি এবং সামরিক স্থাপনা নির্মাণ করে আসছে চীন।

অন্যদিকে এ অঞ্চলে ‘সামরিকীকরণ’ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন দীর্ঘদিন ধরেই পরস্পরকে দোষারোপ করে আসছে। দক্ষিণ চীন সাগরের ওই অঞ্চল দাবি করে চীন। আর যুক্তরাষ্ট্রের দাবি সেটি আন্তর্জাতিক সীমারেখার অন্তর্ভূক্ত।

চীন জানায়, এইচ-৬কে’র পাইলটরা সেখানে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। পশ্চিম প্রশান্ত সাগর ও দক্ষিণ চীন সাগরের লড়াইয়ের কারণেই এই প্রশিক্ষণ।তবে মহড়া ঠিক কোথায় হচ্ছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি।

চীনের কর্তৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করতে প্রায়ই সেখানে রণতরী পাঠায় যুক্তরাষ্ট্র। পেন্টাগনের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট কর্নেল ক্রিস্টোফার লগান বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র উন্মুক্ত ও স্বাধীন ইন্দো-প্যাসিফিক সাগর রক্ষায় বিশ্বাসী। আমরা চীনের সামরিকায়নের খবর পেয়েছি। এতে করে শুধু উত্তেজনাই বৃদ্ধি পাবে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য