প্রতি বছরই ঈদ আনন্দের সঙ্গে বাড়তি আনন্দ যোগ করে টেলিভিশনে প্রচারিত খন্ড ও ধারাবাহিক নাটক। শিল্পী-কলাকুশলীরা ব্যস্ত সময় পার করেন ঈদের নাটকের কাজ নিয়ে। অন্যান্য বছরের মতো এ বছরও রোজা শুরু হওয়ার আগে থেকেই শিল্পী-কলাকুশলীদের ঈদের নাটকের শুটিং ব্যস্ততা শুরু হয়ে গেছে। তারকা শিল্পীদের শিডিউল পেতে রীতিমতো ঘাম ঝরছে নির্মাতাদের। আবার প্রথম সারির নির্মাতারা দম ফেলারও সুযোগ পাচ্ছেন না।

বিগত কয়েক বছরই ঈদের নাটকে সবচেয়ে বেশি উপস্থিতি থাকে মোশাররফ করিম, সজলের। এ ছাড়া ফজলুর রহমান বাবু, চঞ্চল চৌধুরী, আ খ ম হাসান, রওনক হাসানের চাহিদা থাকে বেশি। অভিনেত্রীদের মধ্যে তিশা, মম, নাদিয়া, রিমি করিম, ঈশানার ব্যস্ততা বেশ চোখে পড়েছে।

টানা শুটিং নিয়ে এখন ব্যস্ত অভিনয় শিল্পী, নির্মাতা ও কলাকুশলীরা। এ বছরও ঈদের নাটকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তিশা। গেল কয়েক বছর ধরেই ধারাবাহিক নাটকে খুব একটা দেখা যায় না তিশাকে। মাঝে সিনেমায় ব্যস্ত হয়েছেন। বাণিজ্যিক ধারার সিনেমায়ও অভিনয় করেছেন। তবে টিভি নাটক থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন হননি তিশা। ধারাবাহিক নাটকে নিয়মিত অভিনয় না করলেও খন্ড নাটকে তাকে প্রায়ই দেখা যায়।

আসছে ঈদের জন্য এরই মধ্যে কয়েকটি নাটকের শুটিং শেষ করেছেন। জাকারিয়া শৌখিনের ‘শহরে নতুন প্রেমিক’ নাটকে তিশা জুটি বেঁধেছেন আফরান নিশোর সঙ্গে। এ ছাড়া সাগর জাহানের মাহিন সিরিজের ‘মাহিনের লাল ডায়েরি’ ও ‘মাছের দেশের মানুষ’ নামের দুটি নাটকে তাকে দেখা যাবে জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিমের সঙ্গে। এ ছাড়া গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘সুগন্ধি বোর্ডিং ও তুমি’ শিরোনামের একটি ঈদের নাটকে তিশা থাকছেন জনিপ্রয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর বিপরীতে।

দীর্ঘ সাত বছর পর আবারো একসঙ্গে কাজ করলেন চঞ্চল চৌধুরী-তিশা ও নির্মাতা গোলাম সোহরাব দোদুল। নির্মাতা দোদুল এই তথ্য জানিয়ে বলেন, ‘খুব সম্ভবত তিশা-চঞ্চল জুটির সবচেয়ে বেশি কাহিনীচিত্র নির্মাণ হয়েছে আমার পরিচালনায়। আবারও ত্রয়ী কাজ করলাম ৭ বছর পর। অনুভ‚তি আগের মতোই আছে। বৃষ্টিভেজা দিনে বার বার পুরোনো দিনের কথাগুলো মনে করলাম সবাই মিলে। সত্যি, মানুষ স্মৃতির ঘোরে থাকতে ভালোবাসে।

সম্প্রতি তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ও ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ‘ফাগুন হাওয়া’ ছবির শুটিং শেষ করেছেন। এতে তিশার বিপরীতে অভিনয় করছেন সিয়াম আহমেদ। এর আগে তৌকীর আহমেদের ‘হালদা’ ছবিতে অভিনয় করে ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছেন এই অভিনেত্রী। এ ছাড়া মোস্তফা সারওয়ার ফারুকীর পরিচালনায় ‘শনিবার বিকেল’ নামের একটি ছবিতেও কাজ করছেন তিশা। ওপার বাংলার অরিন্দম শীলের ‘বালিঘর’ নামের একটি ছবিতেও দেখা যাবে তিশাকে। কলকাতার প্রখ্যাত সাহিত্যিক সুচিত্রা ভট্টাচাযের্র ‘ঢেউ আসে ঢেউ যায়’ উপন্যাসের ছায়া অবলম্বনে ছবিটি নির্মিত হবে বলে জানান অরিন্দম। সব মিলিয়ে ব্যস্ত সময় কাটছে তিশার।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য