ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক’শ একর বিরোধীয় জমির কাঁচা-পাকা বোরোধান কেটে প্রতিপক্ষের বাড়ী-ঘরে অগ্নি সংযোগ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গতকাল শুক্রবার বিকালে উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামে এই ধান কাটা ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় ওই দিন বিকালে ফুলবাড়ী ফায়ার সার্ভিস (দমকল বাহিনীর) একটি ইউনিট এক ঘন্টা অভিযান চালিযে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এই ঘটনায় পুলিশ ওই দিন বিকালে ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছে।

লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামের একাধিক বাসীন্দাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে ও লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামের সংলগ্ন পার্বতীপুর উপজেলার মরনাই মৌজার এক’শ একর জমি নিয়ে লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামের শহিদুলের ছেলে রবিউল ইসলাম, আব্দুস সামাদের ছেলে মেজবাহুল, নুর ইসলামের ছেলে মঞ্জুরুল এর সাথে, শংকর পুর গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিনের ছেলে মোক্তার আলী বিরোধ চলে আসছে। এই বিরোধের জেরধরে গত শুক্রবার সকাল থেকে মোক্তার আলীরা বিরোধীয় জমিতে ধান কাটা শুরু করলে, লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামের রবিউল ইসলাম, মেজবাহুল, মঞ্জুরুল থানায় খবর দেয়। থানায় খবর দেয়ায় থানা পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে ধান কাটা বন্ধ করে ও উভায় পক্ষকে জমির কাগজপত্র নিয়ে থানায় আসার নির্দেশ দিয়ে ফিরে আসে। থানা পুলিশ দুপুরে ঘটনা স্থল থেকে ফিরে আসার পর, ওই দিন (শুক্রবার) বিকালে শংকরপুর গ্রামের এক থেকে ডের’শ লোক লক্ষনপুর গ্রামে এসে প্রতিপক্ষের বাড়ীতে হামলা করে অগ্নি সংযোগ করে।

লক্ষন ডাঙ্গা গ্রামের শহিদুলের ছেলে রবিউল ইসলাম, আব্দুস সামাদের ছেলে মেজবাহুল, নুর ইসলামের ছেলে মঞ্জুরুল বলেন বিরোধীয় জমি ১৯৫৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর সরকারের নিকট নিলাম ডাকের মাধ্যমে তাদের পিতারা অথাৎ শহিদুল, আব্দুস সামাদর ও নুর ইসলাম খরিদ করে ও দখল ভোগ করারর সময় ১৯৬২ সালে এসএস রেকড হয়। এর পর তারা রেকডিও মালিক হিসেবে এই জমি চাষাবাদ করে আসছেন। এরেই মধ্যে শংকরপুর গ্রামের কফিল উদিনের ছেলে মোক্তার আলী এই জমির মালিকানা দাবী করায় এই বিরোধ সৃষ্টি হয়। তারা আরো বলেন এই বিরোধের মাঝে এসে শংকরপুর গ্রামের আব্দুল করিম এর ছেলে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও বর্তমান জেলা পরিষদ সদস্য নুরুজ্জামান ও তার ভাই আক্তারুজ্জান মোক্তার আলীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে এই পরিস্থিতি ঘটিয়েছে।

এদিকে মোক্তার আলী দাবী করেন গত ১৪-০৯-১৯৫৫ তারিখে তার তিন চাচার নিকট থেকে হেবাবীল এওয়াজ দলিল মুলে সে এই জমির মালিক, এজন্য তিনি উচ্চ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন যার মামলা নং ৩৭/৯৭ অন্য বর্তমানে বিচারাধীন আছে।

এই বিষয়ে ফুলবাড়ী থানার াফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব যায়যায়দিনকে বলেন জমি নিয়ে দির্ঘ দিন থেকে উভায়ের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে, জমি বিরোধের জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। বর্তমানে পুলিশ ঘটনাস্থল নজরদারী করছে যাতে আর কেউ এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটাতে না পারে। তবে তিনি বলেন এখন (গতকাল শনিবার) পর্যন্ত কোন পক্ষই মামলা দায়ের করেনি। তবে এই রিপোট লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য